ভোট পরবর্তী হিংসা রুখতে হাইকোর্টের দারস্থ প্রাক্তন এজি-র

116
সংগৃহীত ছবি

কলকাতা: আগামী বিধানসভা নির্বাচনে যাতে ২০১১, ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচন এবং ২০১৯-র লোকসভা নির্বাচনের মতো রক্তক্ষয়ী পরিস্থিতি রাজ্যে সৃষ্টি না হয় তার জন্য হাইকোর্ট সব পক্ষকেই নির্দেশ দিক। এই আর্জি জানিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতিকে কয়েকদিন আগেই একটি চিঠি দিয়েছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন এডভোকেট জেনারেল ও বর্ষীয়ান আইনজীবী বিমল কুমার চট্টোপাধ্যায়। তিনি হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন যাতে হাইকোর্ট রাজ্যের আসন্ন নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে তাঁর বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে একটি স্বতঃস্ফূর্ত মামলা দায়ের করে। কিন্তু সেই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে আজ শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি টিবিএন রাধাকৃষ্ণন স্বতঃস্ফূর্ত মামলা দায়ের না করলেও বিমল বাবুকে একটা জনস্বার্থ মামলা দায়ের করার নির্দেশ দিলেন। এবং সেই মামলা তিনি শুনবেন বলে জানিয়েছেন।

বিমল কুমার চট্টোপাধ্যায় তাঁর চিঠিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে লিখেছেন, গত ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনের সময় রাজ্যে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল তা আমার কাছে অত্যন্ত ভীতিকর। রাজনৈতিক দলগুলো নির্বাচনকালে ছাপ্পা,সাধারণ শান্তিপূর্ণ ভোটারদের ভয় দেখিয়ে ভোট না দিতে দেওয়া মতোন কর্মকাণ্ড ঘটিয়ে চলে। তারপর অভিযোগ জানালে রাজনৈতিক দলগুলো পারিস্পরিক দোষারোপ করে গেছে। এই খেলায় সাধারণ মানুষের প্রাণ হানিও হয়েছে। আক্রান্ত হয়েছেন বহু মানুষ। এই পরিস্থিতির পুনরাবৃত্তি আর না হোক।
আদালতের কাছে তিনি আর্জি জানিয়েছেন, রাজ্যে ভোট পরবর্তী হিংসাও ভয়ংকরভাবে দেখা গিয়েছে সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোতে। তাই রাজ্যে যাতে শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতি বজায় থাকে তারজন্য ভোট শেষ হওয়ার পরও অন্তত দুসপ্তাহ যাতে কেন্দ্রীয় বাহিনী এরাজ্য থাকে সেই নির্দেশ দেওয়া হোক। সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হলে তার সম্পত্তি ও জীবন রক্ষার তাগিদে যাতে দ্রুত সহায়তার আবেদন জানাতে পারে প্রশাসনের কাছে তারজন্য একটা হেল্পলাইন চালু করার নির্দেশ দেওয়া হোক। আগামী সোমবার মামলাটি প্রধান বিচারপতি শুনবেন বলে জানিয়েছেন এদিন।

- Advertisement -