প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানকে হেনস্তার অভিযোগ

160

দিনহাটা: গোষ্ঠী কোন্দলের জের। গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে ঢুকতে গেলে প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান পাপিয়া রায়কে হেনস্তার অভিযোগ উঠল বিরোধী গোষ্ঠীর অনুগামীদের বিরুদ্ধে। সোমবার এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে শালমারা গ্রাম পঞ্চায়েত কার্যালয়ে। ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। পরে অবশ্য বাড়ি ফিরে যান প্রাক্তন প্রধান।

প্রাক্তন প্রধান পাপিয়া রায়ের অভিযোগ, ‘বিডিওর নির্দেশে পুলিশ নিয়ে এদিন গ্রাম পঞ্চায়েতে ঢুকতে যাচ্ছিলাম। ঢোকার পর দলেরই আরেকটি গোষ্ঠী হেনস্তা করে। বাধ্য হয়ে সেখান থেকে আমাকে বেরিয়ে আসতে হয়।’

- Advertisement -

জানা গিয়েছে, দিনহাটা-২ ব্লকে দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল চলছে। এর জেরে তৃণমূলের গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান পাপিয়া রায় গত ৬ মাসের বেশি সময় ধরে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে আসছেন না। ফলে গ্রাম পঞ্চায়েতের উন্নয়ন কার্যত থমকে গিয়েছে। রেসিডেন্সিয়াল সার্টিফিকেট সহ বিভিন্ন কাজে গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে এসে হয়রানি হতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। সম্প্রতি ব্লক প্রশাসনের তরফে পাপিয়াদেবীকে সরিয়ে নবারুদ্দিন মিয়াঁকে প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এরপরেও জটিলতা অব্যাহত থাকায় এদিন গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান পাপিয়া রায় ঢুকলে তাঁকে হেনস্তা করা হয় বলে অভিযোগ।

যদিও গ্রাম পঞ্চায়েতের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান নবারুদ্দিন মিয়াঁ বলেন, ‘সেসময় আমি গ্রাম পঞ্চায়েতে ছিলাম না। তবে যেটুকু শুনেছি, সাধারণ মানুষ ওঁনাকে ঢুকতে দেননি।’

গোটা ঘটনা নিয়ে দিনহাটা-২ ব্লকের বিডিও জয়ন্ত দত্ত বলেন, ‘প্রাক্তন প্রধান পাপিয়া রায় গ্রাম পঞ্চায়েত অফিসে ঢুকেছিলেন। তবে গন্ডগোলের কোনও খবর জানা নেই।’