টাকার বিনিময়ে দুয়ারে সরকার শিবিরে চলছে ফর্ম পূরণ

77

সিতাই: বারংবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় দুয়ারে সরকার শিবিরে আবেদনপত্র পূরণে টাকা না নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। অথচ, গ্রামীণ এলাকায় সেই নিষেধাজ্ঞার কোনও প্রভাব পড়ছে না। বুধবার সিতাই ব্লকের সিতাই-১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের দুয়ারে সরকারের শিবির বসেছিল। এদিন নিয়মের তোয়াক্কা না করে, আরজি খানার সিতাই জুনিয়র হাই স্কুলে শিবিরে বসে রীতিমতো ১০-২০ টাকা নিয়ে স্বাস্থ্য সাথী, লক্ষীর ভাণ্ডার সহ একাধিক সরকারি প্রকল্পের আবেদনপত্র পূরণ করে দেওয়ার ছবি প্রকাশ্যে আসে। শিবিরে স্থানীয় পুলিশ এবং ব্লক প্রশাসনের বিভিন্ন আধিকারিকদের উপস্থিতিতেই ব্যাঙের ছাতার মতো গজিয়ে ওঠা এই সমস্ত আবেদনপত্র পূরণ করে দেওয়ার ব্যবসা রমিরমিয়েই চলছে। যদিও, সরকারিভাবে আবেদনপত্র পূরণ করে দেওয়ার জন্য লোক রাখা হয়েছিল। কিন্তু, আশ্চর্যজনকভাবে সেখানে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে সিংহভাগ উপভোক্তাকেই আবেদনপত্র পূরণ করতে দেখা যায়নি। ঘটনায় বিজেপির স্থানীয় নেতৃত্ব শাসকদলের মদতের অভিযোগ তুলেছেন।

সিতাইয়ের জয়েন্ট বিডিও তরুণ বর্মন এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সাধারণ উপভোক্তারা ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলছেন। তাই, টাকা দিয়ে অন্য জায়গায় আবেদনপত্র পূরণ করছেন। আমাদের এখানে আবেদনপত্র পূরণ করে দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত কর্মী রাখা হয়েছে।’ তৃণমূল কংগ্রেসের সিতাই ব্লক সভাপতি মুক্তিপদ মণ্ডল বলেন, ‘বারবার এই বিষয়টি নিয়ে প্রচার করা হয়েছে। কিছু সুযোগ সন্ধানী মানুষ টাকা নিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করছে।’ তবে, সিতাইয়ে এমন ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি দাবি করেন। বিজেপির ২০ নম্বর মণ্ডল সভাপতি নিগমানন্দ রায় সরকার বলেন, ‘এভাবে টাকা নিয়ে আবেদনপত্র পূরণ করা মেনে নেওয়া যায় না। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় বিনে পয়সায় সুবিধা দেওয়ার কথা বলেছেন। এরপরও এমন ঘটনা একেবারেই ঠিক হচ্ছে না বলে দাবি করেন তিনি।’

- Advertisement -