পূর্ব বর্ধমানে মিলল চতুর্থ করোনা পজিটিভ

প্রদীপ চট্টোপাধ্যায়, বর্ধমান: করোনা আক্রান্তের সংখ্যা উত্তরোত্তর বেড়েই চলেছে পূর্ব বর্ধমানে। খণ্ডঘোষ এবং বর্ধমান শহরের পর এবার জেলায় চতুর্থ করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান মিলল মেমারি পুরসভা এলাকায়।এই ঘটনা জানাজানি হতেই রীতিমতো উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন মেমারির বাসিন্দারা।

করোনা পজিটিভ ধরা পড়া বছর ২৩-এর ওই যুবকের বাড়ি মেমারি পুরসভা এলাকায়। শুক্রবার বিকালে রিপোর্ট আসার পরেই নড়েচড়ে বসে পুলিশ ও প্রশাসনের কর্তারা। এরপরেই আক্রান্তকে তাঁর বাড়ি থেকে উদ্ধার করে অ্যাম্বুলেন্সে চাপিয়ে নিয়ে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে। সিল করে দেওয়া হয় আক্রান্তের বাসস্থান সহ গোটা এলাকা। এছাড়াও বাঁশের ব্যারিকেড দিয়ে এলাকায় ঢোকা বেরোনো পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বিকালেই জীবাণুনাশক স্প্রে করা হয় ওই এলাকায়। নজরদারির জন্য মোতায়েন করা হয়েছে বিশাল পুলিশ বাহিনী।

- Advertisement -

পূর্ব বর্ধমানে মিলল চতুর্থ করোনা পজিটিভ| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India

পূর্ব বর্ধমান জেলায় প্রথম করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান মেলে গত ১৮ এপ্রিল। আক্রান্ত ওই ব্যক্তির বাড়ি খণ্ডঘোষে। তাঁকে দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানোর পাশাপাশি তাঁর পরিবার সহ ৭১ জনকে কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয়। সিল করে দেওয়া হয় খণ্ডঘোষ নিবাসী ওই আক্রান্তের বসতি এলাকা। এর কিছুদিন পর কোয়ারান্টিনে থাকা প্রায় সকলেরই করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। কিন্তু গত ২৩ এপ্রিল নাইসেডে পরীক্ষার রিপোর্টে খণ্ডঘোষের আক্রান্ত ব্যক্তির নাবালিকা ভাইজির করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে।তাঁকেও চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে। সেখানে চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে সম্প্রতি খণ্ডঘোষের দু’জনেই বাড়ি ফিরেছেন।

এরপর কয়েকটা দিন কাটতে না কাটতেই সোমবার ফের জেলায় করোনা পজিটিভ রোগীর সন্ধান মেলে। বর্ধমান মেডিকেল কলেজের ‘সিবি-ন্যাট ’যন্ত্রে পরীক্ষার রিপোর্ট ও পরে আইসিএমআরের ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার রিপোর্টে বর্ধমান শহরের এক মহিলার করোনা পজিটিভ ধরা পড়ে। পেশায় কলকাতার একটি সরকারি হাসপাতালের নার্স ওই মহিলাকেও চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয় দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে। কোয়ারান্টিনে পাঠানো হয় মহিলার স্বামী, দুই সন্তান এবং এক গাড়ি চালককে। জেলা পুলিশ মহিলার সমগ্র বাসস্থান এলাকা সিল করে দেয়। এরপর থেকে চার দিন কাটতে না কটতে শুক্রবার জেলার চতুর্থ করোনা আক্রান্তের সন্ধান মিললো মেমারি পুরসভা এলাকায়।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, মেমারি পুরসভার বাসিন্দা ওই যুবক দীর্ঘদিন ধরে লিভারের অসুখে ভুগছিলেন। চিকিৎসার জন্য গত ২৮ এপ্রিল তাঁকে কলকাতার মুকুন্দপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করে পরিবার। সেদিনই তাঁর লিভারে অস্ত্রোপচার হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকাকালীন দু-দফায় তাঁর করোনা পরীক্ষা হয়। সেই পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ আসে। এরপর গত মঙ্গলবার ফের যুবকের লালারস পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়। তারই মধ্যে বুধবার যুবককে ওই বেসরকারী হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ছুটি দিয়ে দেয়। ওই দিনই পরিবারের লোকজন যুবককে মেমারির বাড়িতে নিয়ে চলে আসেন। শুক্রবার দুপুরে যুবকের করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

জেলাশাসক বিজয় ভারতী এদিন জানান, জেলায় চতুর্থ করোনা আক্রান্ত ধরা পড়ল মেমারিতে। ওই যুবককে দুর্গাপুরের কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও যুবকের সংস্পর্শে আসা পাঁচ জনকে বর্ধমানের গাংপুরের কোভিড ১৯ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বর্ধমান শহরের আক্রান্ত মহিলার সংস্পর্শে থাকা পাঁচ জনের করোনা পরীক্ষা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে বলে জানান তিনি।