প্রতিষ্ঠা দিবসে আশার বার্তা লাল-হলুদে

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : প্রতিষ্ঠা দিবসে আশার আলো ইস্টবেঙ্গলে। তেমনটাই ইঙ্গিত লাল-হলুদ কর্তাদের কথায়।

গত প্রায় একবছর ধরে ক্লাব বনাম বিনিয়োগকারী সংস্থার মধ্যে চুক্তি নিয়ে টানাপোড়েন অব্যাহত। ধৈর্যের বাঁধ ভেঙেছে সমর্থকদের। ক্লাবের সামনে সমর্থকদের বিক্ষোভ, আইএসএলে খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তা – নানা ঘটনায় আলোচনার কেন্দ্রে থেকেছে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব। তবে ক্লাবের ১০২তম প্রতিষ্ঠাদিবসে যুদ্ধবিরতির ইঙ্গিত কর্মকর্তাদের গলায়।

- Advertisement -

চুক্তিজট ছাড়াতে ইতিমধ্যে লাল-হলুদের বর্তমান প্রশাসকরা স্মরণাপন্ন হয়েছেন ক্লাবের প্রাক্তন সচিব তথা বিশিষ্ট আইনজীবী পার্থসারথি সেনগুপ্তের। মধ্যস্থতাকারী হিসেবে তাঁর ওপরে ভরসা রাখছেন ইস্টবেঙ্গলের অন্যতম শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকার। তিনি বলেন, আমরা বারবার চুক্তিপত্র ইস্যু নিয়ে বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসতে চেয়েছি। পার্থদার (পার্থসারথি সেনগুপ্ত) বদান্যতায় সেই পথ প্রশস্ত হয়েছে। চুক্তি সমস্যা সমাধানে ক্লাবের প্রাক্তন সচিবের সঙ্গে বিনিয়োগকারী সংস্থার সুসম্পর্কের রসায়নকে কাজে লাগাতে মরিয়া ক্লাব কর্তৃপক্ষ। দেবব্রত সরকারের কথায়, পার্থদা ক্লাবের প্রাক্তন সচিব ছিলেন। ইস্টবেঙ্গলের ভালোমন্দ তিনি বুঝবেন। ইনভেস্টরের সঙ্গেও তাঁর সুসম্পর্ক রয়েছে। ফলে গত কয়েক মাস ধরে আমাদের যে দাবি ছিল, তা হয়তো পূরণ হবে।

করোনা পরিস্থিতির জেরে সাদামাঠাভাবেই এদিন উদ্‌যাপিত হল ইস্টবেঙ্গলের প্রতিষ্ঠা দিবস। ছিল না ভারতগৌরব সহ পুরস্কারপ্রদান পর্ব। তবে সমর্থকদের জন্য চমক রেখেছিল লাল-হলুদ কর্তৃপক্ষ। এদিন ক্লাবতাঁবুতে নবরূপে সজ্জিত দ্বিতল কক্ষের উদ্বোধন করা হয়। ক্লাবের লগ্নিকারীদের আইএসএলের কথা মাথায় রেখে দলগঠন শুরুর অনুরোধ প্রাক্তন তারকা বিকাশ পাঁজির। তাঁর মতে, পড়শি ক্লাব আইএসএলে খেলবে আর ইস্টবেঙ্গল খেলবে না, সেটা মেনে নেওয়া কঠিন।

সবমিলিয়ে গুমোট পরিবেশ কাটিয়ে প্রতিষ্ঠা দিবসে আশার আলোর ইঙ্গিত মশাল শিবির জুড়ে।