জালিয়াতের খপ্পরে পড়ে ৪৫ হাজার টাকা খোয়ালেন মহিলা

83

জটেশ্বর, ১২ জুনঃ জালিয়াতির খপ্পরে পড়ে ৪৫ হাজার টাকা খোয়ালেন জটেশ্বর ডালিমপুর এলাকার এক গৃহবধূ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। টাকা খোয়ানোর পর আকলিমা বেগম নামে ওই মহিলা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন। মহিলার পরিবারের সূত্রের খবর, শনিবার সকাল নাগাদ গৃহবধূ আকলিমা বেগমের মোবাইল ফোনে একটি অচেনা নম্বর থেকে ফোন এসেছিল৷ ফোনে জানানো হয়, তিনি মোটা টাকা বিজয়ী হয়েছেন। তবে, মোটা টাকা পেতে, ব্যাংকে গিয়ে তাঁকে রেজিষ্ট্রেশন ফি জমা করতে হবে। ফালাকাটা থানার আইসি সনাতন সিংহ বলেন, সমস্ত ব্যাংক স্টেটমেন্ট সহ অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। অভিযোগ মিললে, বিষয়টি সাইবার থানায় পাঠানো হবে।

প্রথমে না করলেও, পরে প্রলোভন বদলায় বলে অভিযোগ। মত না থাকলেও, দুই ধাপে ৪৫ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন ওই গৃহবধূ। টাকা পাঠিয়ে পুরস্কারের জন্য ব্যাংকে বহুক্ষণ তিনি অপেক্ষা করেন। তবে, পুরস্কার না পেলেও, ততক্ষণে জালিয়াতির চক্রান্তের বিষয়টি তিনি বুঝতে পেরেছিলেন। বাড়ি ফেরার পরেও, ওই অচেনা নম্বর থেকে ফোন আসে। ওই গৃহবধূ টাকা ফেরানোর দাবি জানান। তখন ওই অচেনা নম্বর থেকে গৃহবধূর সর্বাঙ্গ দেখানোর কথা বলেন এবং এরপর সম্পূর্ণ টাকা ফেরত দেবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন। যদিও, বিষয়টি নিয়ে পুলিশকে লিখিত অভিযোগ জানাতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন তাঁরা।

- Advertisement -

আকলিমা বেগম বলেন, আমার কাছে ফোন আসে আমার সিম কার্ডটি টাকা বিজয়ী হয়েছে। আমার কাছে কোনও টাকা ছিল না। নানা ভাবে প্রলোভন দেখানো হয়। প্রথমে অল্প টাকা দাবি করা হয়। জানানো হয় ওই টাকা দিলে, আমি বিজয়ী পুরস্কারের টাকা পয়ে যাবো। বাধ্য হয়ে একটি সিএসপি কেন্দ্র আমার ছেলেকে দিয়ে ২২ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেই। বহুক্ষণ অপেক্ষা করার পরেও, আমার পুরস্কারের টাকা পাইনি। আবার ওই নম্বর থেকে ফোন আসে আমার কাছে এবং অন্য একটি সিএসপি কেন্দ্রে গিয়ে আরও ২২ হাজার টাকা পাঠাতে বলা হয়। এরপরই আমাকে প্রাপ্য টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কথা মতো দিয়ে দেই। তারপরেও, টাকা পাইনি। পরে ফোন করে আমাকে অশ্লীল কথা বলা হয়েছে। ভিডিও কল মারফৎ আমার সর্বাঙ্গ দেখতে চাওয়া হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আমি পুলিশে অভিযোগ জানাচ্ছি।