শিক্ষিকার বিয়েতে কনের পিঁড়ি ধরলেন বান্ধবীরা

74

তমালিকা দে, শিলিগুড়ি : বিয়ের জন্য কনেকে পিঁড়িতে বসিয়ে দাদা-ভাইরাই নিয়ে যায়। কিন্তু সেই দাদা-ভাইরা কেউ না থাকলে? বান্ধবীরা সেই পিঁড়ি তুলে নিলেন। দেখে সবাই হতবাক। তারপর প্রশংসার বন্যা। সেই দৃশ্য সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড হওয়ার পর থেকেই রীতিমতো ভাইরাল। শিলিগুড়ি হাকিমপাড়া সংহতি মোড়ের বাসিন্দা পেশায় শিক্ষিকা তথা নতুন বৌ অভিষিক্তা ভৌমিক বন্ধুগর্বে দারুণ হাসি হাসছেন।

সোমবার অভিষিক্তার বিয়ে ছিল। রাত ১২টায় বিয়ের লগ্ন। কনের পিঁড়ি তোলার জন্য সেই সময় ছেলেদের কাউকে পাওয়া যায়নি। মুশকিল আসান হয়ে অভিষিক্তাকে পিঁড়িতে বসিয়ে তা তুলে নেন মৈত্রেয়ী, পূজা, পৌলোমী ও দেবলীনা। অভিষিক্তা বলছেন, স্কুলে পড়ার সময় থেকেই প্রতিটি ভালো ও খারাপ মুহূর্তে আমরা বান্ধবীরা সবাই মিলে এক হয়ে থেকেছি। ওরা যে এই সময়ও আমার পাশে থাকবে তাতে আর আশ্চর্য কী। বান্ধবী মৈত্রেয়ী গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, আমরা ছোট থেকে একসঙ্গে বড় হয়েছি। অভিষিক্তার এক মাসতুতো দাদা বিয়েতে উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু তাঁর একার পক্ষে পিঁড়ি তোলা সম্ভব নয়। তাই আমরাই ভাইয়ের দায়িত্ব পালন করেছি।

- Advertisement -

কাণ্ডকারখানা দেখে অভিষিক্তার বিয়েতে পুরোহিতের দায়িত্বে থাকা মনোহর গোস্বামী বলছেন, এত বছর ধরে বিয়ে দিচ্ছি। এমন একটা দৃশ্য যে দেখতে হবে তা কোনও দিনও কল্পনাও করিনি। তবে তিরস্কার নয়, পৌলোমীদের এই প্রয়াসকে তিনি প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন। বিয়ের দিন যিনি অভিষিক্তাকে সাজিয়েছিলেন, পেশায় মেকআপ আর্টিস্ট লিপি পাল ভাওয়াল বলেন, আজও কুসংস্কারের জেরে কোনও কোনও বিয়ে বিপদে পড়ে। এই বিয়ে যেন তারই এক যোগ্য জবাব হয়ে রইল।