বাঘের আতঙ্কে কাজ বন্ধ ধানখেতে, শেষে উদ্ধার ৫ বনবিড়াল

629

সুভাষ বর্মন, ফালাকাটা: বাঘের আতঙ্কে বন্ধ হয়ে গেল ধান কাটার কাজ। পরে উদ্ধার হল পাঁচটি বনবিড়ালের শাবক। তবে মা বনবিড়ালের সন্ধ্যান মেলেনি৷ শুক্রবার সকালে এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে জলদাপাড়া বনাঞ্চল লাগোয়া পারপাতলাখাওয়া ও কালীপুর গ্রামে। তবে বন দপ্তরের দাবি, এ নিয়ে অযথা আতঙ্কের কোনও কারণ নেই।

ফালাকাটার কালীপুর, পারপাতলাখাওয়া ও বংশীধরপুর গ্রামের উত্তরদিকে জলদাপাড়া বনাঞ্চল৷ স্থানীয় সূত্রের খবর, এদিন সকালে পারপাতলাখাওয়া গ্রামের নিরঞ্জন সরকারের ধান খেতে বাঘের বাচ্চা রয়েছে বলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। স্থানীয় কল্পনা সরকার, ক্ষিতীশ সরকার ও বিমল বর্মন ধান খেতের ভিতরে ওই বাচ্চাগুলিকে দেখে চমকে যান। মুহুর্তের মধ্যে পারপাতলাখাওয়া ও পাশের কালীপুর গ্রামে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। এই পরিস্থিতিতে ধান কাটার কাজ বন্ধ করেন দিনমজুররা।

- Advertisement -

স্থানীয় সুজিত সরকার বলেন, ‘গ্রাম থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরেই জলদাপাড়া জঙ্গল। মাঝেমধ্যেই বন্যপ্রাণীরা এই এলাকায় চলে আসে। তাই প্রথম দিকে বাঘের শাবক ধরে নিয়েই গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।’

এই এলাকাগুলি জলদাপাড়া পশ্চিম রেঞ্জের ব্যাংডাকি বিটের অন্তর্গত। খবর পেয়ে গ্রামে ছুটে আসেন কয়েকজন বনকর্মী। তাঁরা শাবকগুলিকে দেখে বুঝে যান, এগুলি বাঘ নয়, বনবিড়াল। পরে ধানখেত থেকে পাঁচটি শাবককে উদ্ধার করা হয়। বনকর্মীরা জানান, শাবকগুলির বয়স কয়েকদিন৷ এগুলিকে জঙ্গলে ছেড়ে দেওয়া হবে।

ব্যাংডাকি বিটের ভারপ্রাপ্ত বিট অফিসার অমিত মঙ্গর বলেন, ‘বিড়ালের বহু প্রজাতি রয়েছে। এদিন যে শাবকগুলি উদ্ধার হয়েছে সেগুলি বনবিড়াল প্রজাতির৷ বনবিড়াল সাধারণত ঝোপ, জঙ্গলের আড়ালেই থাকে। তাই এ নিয়ে অযথা আতঙ্কের কিছু নেই।’