জীবিত থেকেও মৃত, ভাতা বন্ধ বৃদ্ধের

101

চাকুলিয়া: রীতিমতো হেঁটে চলে বেড়াচ্ছেন তিনি। অথচ এক বছর আগে মৃত্যুর কারণ দেখিয়ে তাঁর বৃদ্ধ ভাতা বন্ধ করা হয়েছে। ভোটের মুখে এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। অনেকেই এর পিছনে প্রশাসনের গাফিলতিকে দায়ী করে সরব হয়েছেন। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, চাকুলিয়া তরিয়াল গ্রাম পঞ্চায়েতের গোলগাঁও এলাকার বাসিন্দা মহম্মদ মফিজুদ্দিনের বয়স ৭৬ বছর। তিনি বহাল তবিয়তে বেঁচে রয়েছেন। এহেন ব্যক্তিকে মৃত দেখিয়ে একবছর থেকে তাঁর বৃদ্ধ ভাতা বন্ধ করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

মফিজুদ্দিন বলেন, ‘প্রথমে আমি বুঝতে পারিনি কেন আমার ভাতা বন্ধ করা হয়েছে। বারবার ব্যাংকে এসে পাশ বই চেক করার পর বিষয়টি জানতে পারি। তারপর গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে ব্লক অফিস ও দুয়ারে সরকারে ছুটে গিয়েছি। দেখব, দেখছি, এছাড়া তাঁদের থেকে কোনও আশ্বাস মেলেনি।’ চাকুলিয়া পঞ্চায়েত সমিতির বিরোধী দলের এক সদস্য আকলিমা খাতুন জানান, যেসব বয়স্ক মানুষ ভাতা পাচ্ছেন তাঁরা আদৌ কেউ বেঁচে আছেন কি না তার সমীক্ষার কাজ গ্রাম পঞ্চায়েতের মাধ্যমে করা হয়েছিল। পরে তাদের রিপোর্ট ব্লক অফিসে পাঠানো হলে মৃত ব্যক্তিদের নাম বাদ দেওয়া হয়। মফিজুদ্দিনের নাম যাচাই না করে কীভাবে বাদ পড়ল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। তরিয়াল গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান গৌরি সিংহ জানান, ভিআরপিদের দ্বারাই এই সমীক্ষার কাজ হয়েছিল। ভুল করে হয়তো, এই সমস্যা হয়েছে। বিডিওর সঙ্গে আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। চাকুলিয়া ব্লকের বিডিও কানহাইয়া কুমার রায় বলেন, ‘ব্লক অফিসে যোগাযোগ করলে কাগজপত্র খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

- Advertisement -