রমজান মাসে আংশিক লকডাউনে সমস্যায় ফল ব্যবসায়ীরা

70

চালসা: চলছে মুসলমানদের পবিত্র রমজান মাস। দিনভর রোজা পালনের পর সন্ধ্যায় নির্দিষ্ট সময়ে ইফতার করে রোজা ভাঙা হয়। ইফতারের থালিতে থাকে নানা রকমের ফলমূল। ওই ফলমূল খেয়েই রোজা ভাঙা হয়। এই সময়েই বাজারে ফলের চাহিদা থাকে তুঙ্গে। সেই কারণে রমজানে ফল বিক্রেতাদের বেশ ভালোই ব্যবসা চলছিল। কিন্তু বাঁধ সাধলো করোনা। এখন তাদের সেই ব্যবসায় কিছুটা হলেও ভাঁটা দেখা দিয়েছে। আংশিক লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই ব্যবসায় মন্দা দেখা দিয়েছে প্রত্যেকের।

সরকারের তরফে দেওয়া নির্দেশিকায় মাত্র ৫ ঘণ্টা বাজার খোলা রাখার কথা বলা হয়েছে। সময় কম থাকার ফলে ক্রেতাদের দেখাও তেমন মিলছে না। সরকারের দেওয়া নির্দেশিকায় ফলের দোকানকে কোনও ছাড় দেওয়া হয়নি। সেই কারণে মেটেলি, চালসা, ধুপঝোরা, মাথাচুলকা, বাতাবাড়ি ফার্ম ইত্যাদি এলাকার ফল ব্যবসায়ীদের মাথায় হাত পড়েছে। রমজানে ফলের দোকানকে ছাড় দেওয়ার আবেদন জানান ফল ব্যাবসায়ীরা।

- Advertisement -

বাতাবাড়ি ফার্ম বাজারের এক ফল বিক্রেতা বলেন, ‘রমজান মাসে ফলমূলের ভালোই চাহিদা থাকে। রমজানের শুরুতে এবারেও ভালোই ব্যবসা হচ্ছিল। কিন্তু সরকারিভাবে আংশিক লকডাউন ঘোষণার পর থেকেই ব্যবসায় মন্দা দেখা দিয়েছে। করোনার জন্য মানুষও কম আসছে বাজারে। ফলের দোকানগুলোকে কোনও ছাড় দেওয়া হয়নি। আমাদের দোকান লাগাতেই এক ঘণ্টা লেগে যায়।‘