হলদিবাড়িতে রাজ আমলের কুয়োয় আবর্জনার স্তূপ

278

অমিতকুমার রায়, হলদিবাড়ি : রাজ আমলের কুয়ো এখন আবর্জনা ফেলার জায়গা। হলদিবাড়ি ব্লকের ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী দেওয়ানগঞ্জ বাজারে রয়েছে কোচবিহারের রাজ আমলের ঐতিহ্যবাহী কুয়ো। এখন সেখানে মদের খালি বোতল, আখের ছিবড়ে, প্লাস্টিকের ব্যাগ থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের আবর্জনা ফেলা হচ্ছে। বাজারে আসা ক্রেতারাও কুয়োয় বিভিন্ন ধরনের আবর্জনা ফেলছেন। কুয়োটির বেহাল দশায় ক্ষুব্ধ স্থানীয় বাসিন্দারা। প্রশাসনের তরফে সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবেই সেটির এই অবস্থা বলে অনেকের অভিযোগ।

রাজ আমল থেকেই দেওয়ানগঞ্জ বাণিজ্যকেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠেছিল। কোচবিহারের অর্থনীতিতে এই বাণিজ্যকেন্দ্রের গুরুত্ব ছিল অপরিসীম। কৃষিপণ্যের মধ্যে ধান, পাট ও তামাক ছিল সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। বিভিন্ন জায়গা থেকে ব্যবসায়ীরা এই জনপদে আসতেন। ফলে প্রচুর মানুষের সমাগম হত। তাঁদের পানীয় জলের জোগান দিত ইটের তৈরি এই কুয়োটি। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, বর্তমানে যে জায়গায় কুয়োটি রয়েছে, তার পাশেই ছিল রাজাদের অর্থে পরিচালিত একটি দাতব্য চিকিৎসালয়। সেটি মহারাজা নৃপেন্দ্রনারায়ণের আমলে তৈরি করা হয়। সেই দাতব্য চিকিৎসালয়ে রোগীদের পানীয় জলের পরিষেবা দিতেই এই কুয়োটি নির্মাণ করা হয়েছিল। সংস্কারের অভাবে ধ্বংসের পথে রাজ আমলের স্মৃতিবিজড়িত কুয়োটি দেখে এখন অনেকেই আক্ষেপ করেন। এখন সেটি জলে নয়, আবর্জনায় ভরে রয়েছে।

- Advertisement -

এ বিষয়ে কোচবিহার হেরিটেজ সোসাইটির হলদিবাড়ি শাখার সম্পাদক নারায়ণচন্দ্র রায় জানান, হলদিবাড়ি ব্লকে বিভিন্ন স্থানে রয়েছে রাজ আমলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ নিদর্শন। ঐতিহাসিক নিদর্শনগুলি সংস্কার ও সংরক্ষণ করার বিষয়ে একাধিকবার জেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। যদিও এবিষয়ে দেওয়ানগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ঝর্ণা রায়বসুনিয়া বলেন, রাজ আমলের স্মৃতিবিজড়িত ইটের তৈরি কুয়োটি সংস্কারের ব্যাপারে দ্রুত উদ্যোগ নেওয়া হবে। সাধারণ মানুষও এই ঐতিহ্য রক্ষার দাবি তুলেছেন।