পাগলা কুকুরের দৌরাত্ম, গাজোলে আক্রান্ত ২৫

92

গাজোল: পাগলা কুকুরের আক্রমণে অতিষ্ঠ গাজোল এবং সাহাজাদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বাসিন্দারা। গত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে এই পাগলা কুকুরটি প্রায় ২৫ জনকে কামড়ে আহত করেছে তার মধ্যে শিশু মহিলা ও পুরুষ রয়েছে। গতকাল থেকেই প্রতিষেধক নেওয়ার জন্য গাজোল গ্রামীণ হাসপাতালে ভিড় জমান আক্রান্তরা। কিন্তু গতকাল প্রতিষেধক না থাকার জন্য অনেকেই তা নিতে পারেননি। এদিন সকালে প্রতিষেধক আসার পর তা দেওয়া শুরু হয়েছে। জানা গেছে, গতকাল একটি পাগলা কুকুর প্রথমে বেলডাঙী এলাকায় কয়েক জনকে কামড় দেয়। সেখান থেকে তাড়া খেয়ে কুকুরটি পালিয়ে আসে তুলসীডাঙ্গা এলাকায়। তুলসীডাঙ্গা গ্রামে কয়েকজনকে কামড় দেয়। সেখান থেকে দুর্গাপুরে আরো পাঁচজনকে কামড় দেয়। রহিমপুর এলাকাতেও কয়েকজনকে ওই পাগল কুকুরে কামড় দেয়। এরপর বান্ধাইল এলাকাতেও বেশ কয়েকজনকে তাড়া করে কামড় দেয় কুকুরটি। আজ বান্ধাইল এবং সাহাজাদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের শিলনাগরা এলাকার বেশ কয়েকজনকে কামড় দেয়। ঘটনার জেরে ওই সমস্ত এলাকায় তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পাগলা কুকুরের কামড়ে গতকাল থেকে আজ পর্যন্ত প্রায় ২৫ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। তাদের চিকিৎসা চলছে গাজোল গ্রামীণ হাসপাতালে। আজ দুপুরে ভ্যাকসিন নেওয়ার জন্য লম্বা লাইন পড়েছিল হাসপাতালের আউটডোরে। সাহাজাদপুর অঞ্চলের উপপ্রধান নুরতাজ আলি জানিয়েছেন, দিন সকালেও শিল নাগরা গ্রামে এক শিশুসহ এক মহিলাকে কামড়ায় ওই পাগল পুকুরটি। ঘটনার জেরে গোটা এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এরপর বাধ্য হয়ে গ্রামবাসীরা ওই পাগল কুকুরটিকে তাড়া করে মেরে ফেলে।