তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষে উত্তপ্ত গলসি

331

বর্ধমান: তেল মিলে ক্ষমতার দখল নিয়ে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষে উত্তেজনা ছড়াল পূর্ব বর্ধমানের গলসিতে। শুক্রবার গলসির সিংপুর গ্রামে দু’পক্ষের বোমাবাজি-মারপিটে আতঙ্ক ছড়ায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে বিশাল পুলিশ বাহিনী। শুরু হয়েছে ধরপাকড়।

স্থানীয় সূত্রে খবর, গ্রামের কাছে ভাসাপুল মোড়ে বেসরকারি রাইস ব্রান তেলের মিল আছে। সেখানে সিংপুর গ্রামের বহু মানুষ শ্রমিকের কাজ করেন। মিলের শ্রমিকদের পুজোর বোনাসকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার ঝামেলা চলাকালীন একজনকে মারধর করা হয়। ঘটনার পর ওইদিন জেলার তৃণমূল নেতৃত্ব শ্রমিক ও মালিক পক্ষকে নিয়ে আলোচনায় বসেন। ওই সময়ে বচসা থেকে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে শ্রমিকরা। এই ঘটনা নিয়ে এদিন সকালে আচমকা গ্রামের তৃণমূল নেতা হাসু মণ্ডল ও বকুল শেখের গোষ্ঠীর লোকজন গ্রামে বোমাবাজি শুরু করে বলে অভিযোগ। মিলে নিজেদের ক্ষমতা দেখাতে গ্রামের ভিতরেও ফাটানো হয় আট-দশটি বোমা। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। বোমাবাজির পর থেকে থমথমে হয়ে রয়েছে গোটা গ্রাম। তারপর থেকে পুলিশি ধরপাকড়ের ভয়ে গোটা গ্রামপুরুষ শুন্য হয়ে যায়। বেশ কয়েক জনকে পুলিশ আটক করেছে। গ্রামে জারি রয়েছে পুলিশ টহল।

- Advertisement -

গলসির তৃণমূল নেতৃত্ব যদিও এদিনের ঘটনাকে দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বলে মানতে নারাজ। তাঁদের বক্তব্য, যা ঘটেছে তা আসলে বোনাস নিয়ে মিল মালিকের সঙ্গে শ্রমিকদের ঝামেলা। এর সঙ্গে দলের কোন সম্পর্ক নেই। জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সহসভাপতি জাকির হোসেন জানিয়েছেন, বোনাস সহ বিভিন্ন দাবিদাওয়া নিয়ে মালিকের সঙ্গে শ্রমিকদের গণ্ডগোল হয়েছে। জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি ইফতিকার আহম্মদ ও তৃণমূল নেতা খোকন দাস বিষয়টি মীমাংসা করতে কারখানায় গেলে কিছু বহিরাগত লোকজন অশান্তি সৃষ্টি করে। তারা বোমাবাজি করেছে। যদিও গ্রামের বাসিন্দা নাজিয়ারা সেখ বলেন, তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর লোকজনই এদিন গ্রামে বোমাবাজি করেছে।