ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী, পুলিশে যেতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে

181
প্রতীকী

হরিশ্চন্দ্রপুর:  প্রতিবেশী যুবকের ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ল এক কিশোরী। ঘটনার ছয় মাস পরে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। অভিযোগ দায়ের করতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয় তৃণমূলের নেতাদের বিরুদ্ধে। জানা গেছে, হরিশ্চন্দ্রপুর থানা থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে এক গ্রামে বাড়ি ওই কিশোরীর। অভিযুক্ত যুবকের বাড়িও একই এলাকায়। গত ফেব্রুয়ারি মাসে ঘটনাটি ঘটে বলে অভিযোগ কিশোরীর পরিবারের। অভিযুক্ত যুবকের দিদির সঙ্গে পরিচয়ের সূত্রে তার বাড়িতে গিয়েছিলেন নির্যাতিতা কিশোরী। তখনই সুযোগ বুঝে ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে অভিযুক্ত। কাউকে ঘটনার কথা জানালে কিশোরীকে প্রাণে মারার হুমকি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। ভয়ে ওই কিশোরী কাউকে কিছু জানায়নি। কিন্তু সম্প্রতি সে অন্তঃসত্ত্বা হতেই পরিবার বিষয়টি জানতে পারে। কিন্তু স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব থানায় অভিযোগ জানালে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয়। কিশোরীর বাবা বলেন, ‘আমরা গরিব মানুষ, অপমান ও লোকলজ্জার ভয়ে এবং কিছু লোক হুমকি দেওয়ায় ভয়ে পুলিশকে কিছু জানাইনি। পরে মেয়ের ভবিষ্যতের কথা ভেবে পুলিশের দ্বারস্থ হই।’

হরিশ্চন্দ্রপুরের আইসি সঞ্জয় কুমার দাস জানান, অভিযুক্ত এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে। তার খোঁজে তল্লাশি চলছে। পুলিশ সমস্ত ঘটনাই খতিয়ে দেখছে। সোমবার কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষাও করা হয়েছে। জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক জম্বু রহমান অভিযোগ জানাতে বাধা দেওয়ার কথা অস্বীকার করেছেন। তিনি জানান, ওই বুথে সকলেই বিজেপি। তৃণমূলের বদনাম করতে এসব ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। এমন ঘটনাকে দল সমর্থন করে না। যদিও স্থানীয় বিজেপি নেতা রূপেশ আগরওয়াল জানিয়েছেন, গ্রাম পঞ্চায়েত,  জেলা পরিষদ থেকে বিধায়ক সবাই তৃণমূলের। বিজেপির বাধা দেবার সাহসই নেই। ঘটনা থেকে নজর এড়াতে বিজেপিকে অযথা টানা হচ্ছে।

- Advertisement -