গলফে আগ্রহ বাড়াতে পদক চান অদিতি

টোকিও : মীরাবাই চানু, লভলিনা বরগোহাইঁ, পিভি সিন্ধু। টোকিও থেকে পদক নিয়ে ফিরেছেন ভারতের তিন কন্যা। শনিবার এই তালিকায় নাম তোলার দৌড়ে রয়েছেন গলফার অদিতি অশোকও। শুক্রবার মেয়েদের ব্যক্তিগত স্ট্রোক প্লে ইভেন্টের তৃতীয় রাউন্ডের শেষে দ্বিতীয় স্থানে আছেন অদিতি।

তৃতীয় রাউন্ডের শেষে অদিতির স্কোর ১২ আন্ডার ২০১। এদিন টোকিওর গলফ কোর্সে পাঁচটি বার্ডি ও ২টি বোগি মারেন। তিনি শীর্ষে থাকা মার্কিন নেলি কোর্দার থেকে মাত্র তিন শট পিছিয়ে আছেন। মোট শটে পিছিয়ে থাকলেও তৃতীয় রাউন্ডে বিশ্বের এক নম্বর গলফার নেলির থেকে একটা শট কম নিয়েছেন। ২৩ বছরের অদিতির এবার দ্বিতীয় অলিম্পিক। পাঁচ বছর আগে ভারতের প্রথম মহিলা গলফার হিসেবে অলিম্পিকের টিকিট পেয়েছিলেন। রিওতে পুরুষ ও মহিলা বিভাগ মিলিয়ে তিনিই ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ গলফার। টোকিওয় ভারতের আরেক প্রতিনিধি দীক্ষা ডাগর ৭ ওভার ২২০ স্কোর করে যুগ্মভাবে ৫১ নম্বরে রয়েছেন।

- Advertisement -

গলফের বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ের বিচারে টোকিওয় অনেকটাই পিছিয়ে শুরু করেছেন অদিতি (২০০)। কিন্তু ভারতের অন্য অ্যাথলিটদের মতো তিনিও প্রমান করছেন, অলিম্পিকের মঞ্চে র‌্যাংকিং একটি সংখ্যা মাত্র। দেশে গলফের প্রচার কম হওয়ায় অখুশি অদিতির বক্তব্য, কেউই সেভাবে গলফের খোঁজখবর রাখে না। তাঁরা গলফের বিষয়ে জানেন তবুও খোঁজ করেন না, এমন নয়। যেমন অলিম্পিকে পদক জয়ের থেকেও একজন গলফারের কাছে মেজর জেতা বড় সাফল্য। অবশ্য অলিম্পিকেও হকি বা শুটিংয়ের মতো স্পোর্টস বেশি প্রচার পায় কারণ তাতে আমাদের সাফল্য বেশি। আশা করছি এরপর গলফ নিয়ে মানুষের উৎসাহ বাড়বে। তাঁরা এই খেলা নিয়ে খোঁজ রাখতে আগ্রহী হবেন।

রিওতে ক্যাডি হিসেবে বাবা অশোক গুডলামানু ছিলেন অদিতির পাশে। টোকিওয় ক্যাডির দায়িত্বে আছেন মা মহেশ্বরী। ইতিমধ্যেই টোকিওয় মাঝে মাঝে ঝড়-বৃষ্টি হচ্ছে। শনিবার আবহাওয়ার জন্য খেলা বাতিল করা হলে প্রতিযোগিতার স্ট্যাটাস ৭২ হোল থেকে কমিয়ে ৫৪ হোল করা হবে। সেক্ষেত্রে বর্তমান তালিকা অনুসারে নেলি সোনা ও অদিতি রুপো পাবেন। অবশ্য আবহাওয়া যাই থাকুক, টোকিও থেকে পদক নিয়ে ফিরতে চাইছেন অদিতি।