পুলিশের মাধ্যমে শাসন চালান মুখ্যমন্ত্রী, কীভাবে হবে সুষ্ঠু নির্বাচন? প্রশ্ন ধনকড়ের

670
ফাইল ছবি।

নয়াদিল্লি: দিল্লিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা’র সঙ্গে বৈঠক সেরে ফের একবার রাজ্যের তীব্র সমালোচনায় সরব রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। বৃহস্পতিবার বৈঠক শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে রাজ্যেকে রীতিমতে একহাত নেন তিনি। আইনশৃঙ্খলা থেকে মানবাধিকার, সব ক্ষেত্রেই রাজ্যকে বিঁধলেন রাজ্যপাল।

এদিন রাজ্যপাল বলেন, “স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে কথা হয়েছে। গোটা রাজ্য জুড়ে নৈরাজ্য চলছে। রাজ্যে একের পর এক রাজনৈতিক হিংসার ছবি ধরা পড়ছে। আইনের কোনও শাসন নেই। মানবাধিকারের কোনও জায়গা নেই। দিনের পর দিন গণতন্ত্রের অধঃপতন।”একথা বলার পরেই তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, “যে কোনও রাজ্যে আমলাতন্ত্রে রাজনীতিকরণ গণতন্ত্রকে টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।” পাশাপাশি সন্ত্রাসবাদের বিষয়েও রাজ্যের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগের দেন রাজ্যপাল। ধনকড়ের অভিযোগ,” রাজ্যে আল কায়দা জাল ছড়িয়েছে, তৈরি হচ্ছে বোমার কারখানা।” এরকম পরিস্থিতিতে রাজ্য প্রশাসনের আমলাদের উপস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচন কতটা অবাধ ও সুষ্ঠু ভাবে সম্পন করা যাবে তা নিয়ে রীতিমত সন্দেহ প্রকাশ করেছেন রাজ্যপাল।

- Advertisement -

এদিন ধনকড় আরও বলেন,রাজ্যে আইনশৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে। রাজনৈতিক আদেশ পালন করতেই কি রয়েছে পুলিশ? দেশের সংবাদমাধ্যমের জানা উচিত পশ্চিমবঙ্গের কথা। পশ্চিমবঙ্গে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হচ্ছে। প্রশাসনকে বারবার চিঠি লিখেও উত্তর পাইনি। রাজ্যে রাজনৈতিক হানাহানি চলছে। শুধু পুলিশের মাধ্যমে শাসন চালাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। কীভাবে এখানে হবে সুষ্ঠু নির্বাচন, আমি উদ্বিগ্ন। সংবিধান, আইনের শাসনকে উপেক্ষা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। আমলারা এখানে রাজনৈতিক দলের অনুগত। মুখ্যসচিব, নিরাপত্তা উপদেষ্টাদের দিয়ে কাজ করানো হচ্ছে। ধর্ষণ-অপহরণ-মহিলাদের বিরুদ্ধে অপরাধ রাজ্যে বেড়েছে। আমার পাঠানো রিপোর্টকে ভিত্তিহীন বলেছে রাজ্য সরকার। উত্তরবঙ্গে থাকব মানুষকে জানতে, ইস্যুগুলোকে জানতে।