কলকাতা, ৫ ডিসেম্বরঃ রাজ্যপাল ও রাজ্য সরকার সংঘাত ফের একবার নতুন মোড় নিল। বৃহস্পতিবার বিধানসভা পরিদর্শনে গিয়ে গেট বন্ধ থাকায় রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনকর। পরে অন্য একটি গেট দিয়ে ভিতরে ঢোকেন তিনি। বাংলা তো বটেই, গোটা দেশে এই ধরণের ঘটনা আগে ঘটেছে বলে কেউ মনে করতে পারছেন না। রাজ্যপাল জানান, বিধানসভার অধিবেশন মুলতুবি রয়েছে মানে বিধানসভার গেট বন্ধ, এমনটা নয়। গণতন্ত্রের জন্য এই ঘটনা শুভ লক্ষণ নয়। স্পিকারের দপ্তরের তরফে জানানো হয়েছে, অধিবেশন মুলতুবি থাকায় তিনি আসতে পারবেন না।

রাজভবন থেকে বুধবার দুপুরে স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার বিধানসভা পরিদর্শনে যাবেন রাজ্যপাল। এদিন রাজ্যপাল জানান, এই কথা জেনে স্পিকার বিধানসভার তরফে বৃহস্পতিবার সস্ত্রীক রাজ্যপালকে মধ্যাহ্নভোজের নিমন্ত্রণ করেন। কিন্তু তার কিছুক্ষণের মধ্যেই স্পিকারের দপ্তর থেকে রাজভবনকে জানানো হয়, অধিবেশন মুলতুবি থাকায় বৃহস্পতিবার বিধানসভায় আসবেন না স্পিকার।

কিন্তু তাতেও তাঁর কর্মসূচি বদলাতে রাজি হননি রাজ্যপাল। এদিন সকাল সাড়ে দশটায় তিনি বিধানসভার গেটে পৌঁছে যান। সাধারণত আকাশবাণী ভবনের ঠিক বিপরীতে তিন নম্বর গেট দিয়ে রাজ্যপাল বিধানসভায় প্রবেশ করেন। কিন্তু দেখা যায়, রাজ্যপাল আসবেন জেনেও সেই গেট বন্ধ। রাজ্যপালের গাড়ি ওই গেট দিয়ে সোজা ভিতরে ঢুকে যাওয়ার কথা। গেট বন্ধ দেখে রাজ্যপাল নেমে পড়েন। সেখানে বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকেন তিনি। রাজ্যপাল বলেন, বিধানসভা মুলতুবি রয়েছে জেনেই আসতে চেয়েছিলাম। বিধানসভার অধিবেশন বন্ধ রয়েছে মানে এই নয় যে বিধানসভার সচিবালয় বন্ধ। কিন্তু তার পরেও যেভাবে গেট বন্ধ করে রাখা হয়েছে তাতে অতি দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। ওই গেটের সামনে প্রায় ১৮ মিনিট অপেক্ষা করার পর রাজ্যপাল ডানদিকের অন্য গেটের দিকে হাঁটা লাগান। মূলত ওই গেট বিধানসভার কর্মী, বিধায়করা ভিতরে ঢোকেন।  ভিতরে ঢুকে আগে বিধানসভার লাইব্রেরির দিকে এগিয়ে যান রাজ্যপাল।