ম্যাচ খেলতে গিয়ে সেনা বিদ্রোহের সাক্ষী

কনাক্রি (গিনি) : ম্যাচ খেলতে গিয়ে সেনা অভ্যুত্থানের সাক্ষী হল মরোক্কোর ফুটবল দল। শেষ পর্যন্ত ম্যাচ না খেলে নিরাপদে দেশে ফিরেছে গোটা দল।

বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচ খেলতে পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গিনি সফরে গিয়েছে মরোক্কো। কিন্তু ম্যাচের ঠিক আগেই দেশের শাসন ব্যবস্থা হাতে নিয়েছে গিনির সেনাবাহিনী। ফলে মাঠে না গিয়ে হোটেলেই বন্দি থেকেছে গোটা মরোক্কো দল। সেই দলে রয়েছেন প্যারিস সাঁ জাঁর ডিফেন্ডার আশরাফ হাকিমির মতো তারকা। এ প্রসঙ্গে দলের কোচ ভালিদ হালিজোহিচ এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, আমরা হোটেলে বন্দি। সারাদিন শুধু গুলির শব্দ শুনেছি। আপাতত বিমানবন্দরে যাওয়ার অনুমতির অপেক্ষায় রয়েছি। শুনেছি আমাদের জন্য বিমান তৈরি রাখা হয়েছে। তবে আমাদের বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। হোটেল থেকে বিমানবন্দর প্রায় এক ঘণ্টার রাস্তা। এটুকু যাওয়াই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। কোচের কথায়, যতই হোটেলে থাকি, বাইরে একটানা গুলির শব্দ শুনলে নিজের ও দলের নিরাপত্তা নিয়ে আশঙ্কা হবেই।

- Advertisement -

পরিস্থিতি এতটাই গুরুতর হয়ে যায় যে কোচ ম্যাচ খেলার কথা মাথায় না রেখে নিরাপদে গিনি ছাড়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে যান। তাঁর বক্তব্য, আমি শুনলাম এই ম্যাচটা মরোক্কোয় আয়োজন করা হতে পারে। তবে আমি সেসব নিয়ে ভাবছি না। আপাতত এখানে আটকে আছি। সেই অপেক্ষার অবসান হলেই খুশি হব। শেষ পর্যন্ত অবশ্য নিরাপদেই ফিরেছেন তাঁরা। সূত্রের খবর, লিভারপুলের তারকা নবি কেইতা সহ গিনির ফুটবলাররাও নিরাপদে আছেন। অন্যদিকে, আপাতত ম্যাচ বাতিল করার কথা জানিয়েছে ফিফা। যদিও পরবর্তীতে কবে এই ম্যাচ হবে তা এখনও জানায়নি তারা।