ফের ভূমিকম্প গুজরাতে, এই নিয়ে টানা তিনদিন

265

অনলাইন ডেস্ক: ফের ভূমিকম্প গুজরাতে।

রবিবার, সোমবারের পর মঙ্গলবারেও কেঁপে উঠল গুজরাত। এদিন সকাল ১০.৫০ নাগাদ কচ্ছের বাচাউয়ে মৃদু মাত্রার কম্পন অনুভূত হয়। রিখটর স্কেলে কম্পনের মাত্রা ধরা পড়ে ৩.৫।

- Advertisement -

বাচাউ থেকে ১১ কিমি দূরে কম্পনের কেন্দ্রস্থল ছিল বলে জানা গিয়েছে। রবিবার থেকে টানা কম্পনের ফলে ব্যাপক আতঙ্ক তৈরি হয়েছে এলাকায়। তবে এদিনের কম্পনে তেমন ক্ষয়ক্ষতির খবর মেলেনি। গুজরাতের এই এলাকা ভূমিকম্পন প্রবণ অঞ্চলগুলির মধ্যে কচ্ছ অন্যতম।

উল্লেখ্য, এর আগেও একাধিকবার ভয়াবহ ভূমিকম্পের সাক্ষী হয়েছে গুজরাত। ১৯১৮-য় কচ্ছের রণে ভূমিকম্প হয়। ১৯৫৬ সালে অঞ্জর এলাকা কেঁপে ওঠে। তবে ২০০১-এর ২৬ জানুয়ারি গুজরাতে সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্প হয়। সেবার কম্পনের মাত্রা ছিল ৬.৯।

মঙ্গলবার সকালে কাশ্মীরের বিস্তীর্ণ অঞ্চল কেঁপে ওঠে। ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) জানিয়েছে, মঙ্গলবার সকাল ৭টা ৩মিনিট নাগাদ তাজিকিস্তানের দুশানবে থেকে ৩৪১ কিমি পূর্ব-দক্ষিণপূর্বে জোরালো কম্পন অনুভূত হয়। রিখটর স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৬.৮। তারই জেরে প্রবলভাবে কেঁপে ওঠে ভূস্বর্গ।

এই নিয়ে টানা তৃতীয় দিন ভূমিকম্প হল ভূস্বর্গে। রবিবারও কম্পন অনুভূত হয় জম্মু ও কাশ্মীরে। রিখটর স্কেলে কম্পনের তীব্রতা ছিল ৩। সোমবার ভোরে ফের ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে জম্মু ও কাশ্মীর। তবে ভূমিকম্পের জেরে এখনও পর্যন্ত এলাকায় কোনও ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

কাশ্মীরের পাশাপাশি রবিবার ও সোমবার ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে গুজরাতও। রবিবার রাত ৮টা ১৩ মিনিট নাগাদ কম্পন অনুভূত হয় গুজরাতে। গুজরাটের রাজকোট-সহ বিস্তীর্ণ এলাকা কেঁপে ওঠে। রিখটর স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.৫। উপকেন্দ্র রাজকোট ছাড়াও কচ্ছ, সৌরাষ্ট্র এবং আমদাবাদেও কেঁপে ওঠে।

এরপর সোমবার দুপুর ১টা নাগাদ ফের গুজরাটে ভূমিকম্প হয়। ন্যাশনাল সেন্টার ফর সিসমোলজি (এনসিএস) জানাচ্ছে, রিখটর স্কেলে কম্পনের মাত্রা ধরা পড়ে ৪.৪। ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র ছিল রাজকোট থেকে ৮২ কিমি উত্তর-পশ্চিমে। ঘটনার জেরে তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে ঘটনায় কোনও ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছে বিজয় রূপাণি সরকার।

এদিকে সোমবার দুপুরে ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে দেশের রাজধানী। রিখটর স্কেলে কম্পনের মাত্রা ছিল ২.১। মঙ্গলবার রাতে আন্দামানে দিগলিপুরে ভূ-কম্পন অনুভূত হয়। রিখটর স্কেল ভূমিকম্পের তীব্রতা ছিল ৪.৩। এদিকে একের পর এক ভূমিকম্প ভূবিজ্ঞানীদের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে।

তাঁদের মতে, একের পর এক স্বল্প মাত্রার কম্পন বড় ভূমিকম্পের ইঙ্গিত নিয়ে আসছে। আইআইটি ধানবাদের সিসমোলজি বিভাগের জিওফিজিক্সের অধ্যাপক পিকে খান জানান, একের পর এক ছোট মাত্রার কম্পন থেকেই বড় ভূমিকম্পের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। এই বিষয়ে কেন্দ্রের সতর্ক হওয়া উচিত।