গুয়াহাটি, ১৮ ফেব্রুয়ারিঃ জমির কাগজ, প্যান কার্ড এবং ব্যাংকের কাগজ কারও নাগরিকত্ব প্রমাণ করে না। এমনটাই জানিয়ে দিল গুয়াহাটি হাইকোর্ট। পশ্চিম অসমের বক্সা জেলার তমুলপুরের এক মহিলাকে ট্রাইবুনাল বিদেশি হিসেবে চিহ্নিত করায় হাইকোর্টে আবেদন করেছিলেন তিনি। মঙ্গলবার তাঁর আবেদন খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট। জাবেদা বেগম তাঁর বাবার পরিচয় এবং স্বামীর পরিচয় ঘোষণা করে গ্রাম প্রধানের দেওয়া শংসাপত্র সহ আরও ১৪টি নথি ট্রাইবুনালে জমা দিয়েছিলেন। তবে, ট্রাইবুনাল বলেছে, তাঁর বাবা-মায়ের সঙ্গে সম্পর্ক প্রমাণ হয়, এমন কোনও নথি দিতে পারেননি তিনি। হাইকোর্টে তাঁর ব্যাংকের কাগজ, জমির কর প্রদানের রশিদ, প্যান কার্ড জমা করেছিলেন। কিন্তু এর কোনওটিই নাগরিকত্বের প্রমাণ নয় বলে জানিয়ে দিয়েছে গুয়াহাটি হাইকোর্ট।

গতবছর অগাস্টে এনআরসির চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশিত হয়। সেখানে ১৯ লক্ষ মানুষের নাম বাদ পড়েছে। তবে নাগরিকত্ব প্রমাণ করতে প্রথমে ট্রাইবুনাল, তার পরে হাইকোর্ট এবং তারও পরে সুপ্রিমকোর্টে আবেদন করা যাবে এবং সবরকম আইনি সাহায্য শেষ না হওয়া পর্যন্ত কাউকে ডিটেনশন ক্যাম্পেও পাঠানো হবে না বলে প্রশাসন জানিয়েছিল। আদালত জানিয়েছে, জমির কর দেওয়ার বিষয়টি গ্রাম প্রধানের সঙ্গে সম্পর্কিত। এই শংসাপত্রগুলি কখনই কোনও ব্যক্তির নাগরিকত্বের প্রমাণ হতে পারে না। বিচারপতি মনজিৎ ভূঁইয়া এবং পার্থিবজ্যোতি সাইকিয়া বিভাগের ডিভিশন বেঞ্চ এই রায় দিয়েছেন।