স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের ছবি তুলতে গিয়ে হয়রানি, বিক্ষোভ

65

বালুরঘাট: মাইকিং-এ বিজ্ঞপ্তি শুনে স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের ছবি তুলতে গিয়ে হয়রানির শিকার বালুরঘাট ব্লকের বাসিন্দারা। ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার বালুরঘাট বিডিও অফিস ঘেরাও করে বিক্ষোভে শামিল হলেন তাঁরা। তাদের অভিযোগ, শেষ মুহুর্তে তাদের জানানো হয় ছবি তোলার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট পঞ্চায়েত অফিস থেকে স্লিপ আনতে হবে। এতেই গোল বেঁধে যায় এদিন। সমস্যা সমাধানে আগামীতে সঠিক পন্থায় মাইকিং-এ প্রচার চালানো হবে জানিয়েছেন বালুরঘাট ব্লক বিডিও।

অভিযোগ, গতকাল বালুরঘাট ব্লকের বিভিন্ন গ্রামে মাইকিং করে প্রচার করা হয়। মাইকিং করে জানানো হয় জানানো হয়, রবিবার চতুর্থ পর্যায়ের দুয়ারে সরকারের শেষ দিন। যে সমস্ত বাসিন্দারা স্বাস্থ্য সাথী কার্ডের জন্য স্লিপ পেয়েছেন, তারা যেন বিডিও অফিসে গিয়ে কার্ড তৈরীর ছবি তোলেন। এরপরেই বালুরঘাট ব্লকের বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দারা এদিন বালুরঘাট বিডিও অফিসে পৌঁছোন ছবি তোলার জন্য। কিন্তু ছবি তুলতে গিয়ে তারা জানতে পারেন, সংশ্লিষ্ট পঞ্চায়েত অফিসের স্লিপ প্রয়োজন। ঘটনায় হয়রানির অভিযোগ তুলে বিডিও অফিস চত্বরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন ক্ষুব্ধ বাসিন্দারা।

- Advertisement -

ব্লক অফিস সূত্রে খবর, এদিন স্থানীয়রা যে স্লিপ হাতে ছবি তোলার জন্য ব্লক অফিসে ভির জমিয়েছিলেন তা আবেদনের কাউন্টার পার্ট। যদিও ছবি তোলার ক্ষেত্রে প্রয়োজন ইউআরএন স্লিপ। যা সংশ্লিষ্ট পঞ্চায়েত অফিস থেকে দেওয়া হয়। অভিযোগ, মাইকিং করে স্পষ্ট কিছু বলা হয়নি। স্বাভাবিকভাবেই বিভ্রান্ত ছড়ায় এদিন। হয়রাণির শিকার হতে হয় স্থানীয়দের।

এবিষয়ে বিডিও অনুজ সিকদার বলেন, যারা শুধুমাত্র আবেদন করেছে তাদের ডাকা হয়নি। তিনি আবেদনের পর স্বাস্থ্য ভবন থেকে দেওয়া ইউআরএন স্লিপ যারা পেয়েছেন তাদেরকেই ডাকা হয়েছিল। সম্পূর্ণ বিষয়টি তুলে ধরে মাইকিং করা হলে ভাল হত। আমরা সবাইকেই আশ্বাস দিয়েছি। সকলকেই স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড দেওয়া হবে। অন্যদিকে, তিনি আরও বলেন, ‘পরবর্তীতে পঞ্চায়েতগুলি যাতে এবিষয়ে সঠিকভাবে প্রচার চালায়, তার নির্দেশ দেব।‘