বিয়ে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে নাবালিকাকে ধর্ষণ, শিলিগুড়ি থেকে গ্রেপ্তার অভিযুক্ত

128

ঘোকসাডাঙ্গা: বিয়ে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগ। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বুধবার প্রতিবাদে মিছিল বের করে নাগরিক মঞ্চ সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। এদিকে মাথাভাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সিদ্ধার্থ দর্জি জানান নির্যাতিতার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা রুজু করা হয়েছে। বুধবার শিলিগুড়ি থেকে অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

বড় যাত্রী হিসেবে বিয়ে বাড়িতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার হল এক নাবালিকা। এই মর্মে মঙ্গলবার ঘোকসাডাঙ্গা থানায় লিখত অভিযোগ দায়ের করে নির্যাতিতার পরিবার। অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে তদন্তে ঘোকসাডাঙ্গা থানার পুলিশ। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে।

- Advertisement -

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার মাথাভাঙ্গা ২ ব্লকের রুইডাঙ্গা গ্রাম পঞ্চায়েতের রামঠেঙ্গা এলাকার এক নাবালিকা অন্যান্যদের সঙ্গে মাথাভাঙ্গা ২ ব্লকের বড় শৌলমারি গ্রাম পঞ্চায়েতের মুকুল ডাঙ্গা গ্রাম এলাকায় বরযাত্রী যায়। অভিয়োগ বিয়ে বাড়িতে টিফিন খাওয়ার পর সেই নাবালিকা হাত ধোয়ার জন্য কল পাড়ে গেলে সেই এলাকার যুবক দেবব্রত প্রামানিক ওরফে গৌতম (৩০) মুখ চাপা দিয়ে পাশের জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। কোনওক্রমে ধর্ষকের হাত থেকে বাঁচতে তাকে কামড় দিয়ে সেই নাবালিকা পালিয়ে বিয়ের মণ্ডপে হাজির হয় রক্তাক্ত অবস্থায়। ঘটনায় বিয়ে বাড়িতে হুলুস্থুল পরে যায়। গুরুতর জখম নাবালিকে প্রথমে ফালাকাটা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সেই নাবালিকাকে কোচবিহার এমজেএন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷

নাবালিকার পিতা জানায়, এখনও তাঁর কন্যা চিকিৎসাধীন। গোটা ঘটনা জানিয়ে মঙ্গলবার এবিষয়ে ঘোকসাডাঙ্গা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এই ঘটনায় মুকুলডাঙা এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছে। ইতিমধ্যে বিজেপি তপসিলি মোর্চার রাজ্য সহ-সভাপতি কুমার জিতেন্দ্র নারায়ণ এবং কোচবিহার জেলার সহ সভাপতি জগবন্ধু বর্মন নাবালিকার বাড়িতে সহমর্মিতা জানাতে হাজির হন বলে জানা যায়। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রুইডাঙ্গা এলাকায় মিছিল বের করে নাগরিক মঞ্চ। নিউ চেংড়াবান্ধা এলাকায় অভিযুক্তের কঠোর শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন তৃণমূল কংগ্রেস, পর্যায়ক্রমে বিজেপি এবং ডিওয়াইএফআই বিক্ষোভ মিছিল করেন বলেও জানা যায়।

এব্যাপারে মাথাভাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সিদ্ধার্থ দোরজি জানান নির্যাতিতার পরিবার মঙ্গলবার এবিষয়ে ঘোকসাডাঙ্গায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযোগ পাওয়ার পরেই মামলা রুজু করে গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করে পুলিশ। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে অভিযুক্ত যুবক শিলিগুড়িতে এক বেসরকারি নার্সিংহোমে চিকিৎসাধীন। তারপরেই পুলিশের একটি বিশেষ দল শিলিগুড়ি রওনা দেয়। সেখান থেকেই অভিযুক্ত যুবককে অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভিযুক্তকে আদালতে পাঠানো হবে ও তাকে রিমান্ডে নিয়ে গোটা ঘটনার কিনারা করা হবে।