করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের কথা মাথায় রেখে বড় সিদ্ধান্ত স্বাস্থ্য দপ্তরের

199

নাগরাকাটা: করোনার তৃতীয় ঢেউয়ের কথা মাথায় রেখে উত্তরবঙ্গের সব জেলা হাসপাতালেই এবার পিকু (পেডিয়াট্রিক ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট) চালু করা হচ্ছে। করোনা পরিস্থিতি আগের চেয়ে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এলেও আত্মতুষ্টির কোনও স্থান নেই। সেপ্টেম্বর থেকেই তৃতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। শুক্রবার লুকসান প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের নির্মীয়মাণ ভবন পরিদর্শনে এসে এমনটা জানালেন উত্তরবঙ্গের অফিসার অন স্পেশাল ডিউটি (জনস্বাস্থ্য) ডাঃ সুশান্ত রায়। পাশাপাশি তিনি জানান, তৃতীয় ঢেউয়ে শিশুদের সংক্রমণের সম্ভাবনার কথা মাথায় রেখে সবকটি জেলা হাসপাতালে আলাদা করে পেডিয়াট্রিক ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট বা পিকু ওয়ার্ড খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সুশান্তবাবু জানান, তাঁরা আগেই জানিয়েছিলেন দ্বিতীয় ঢেউ আসবে। দ্বিতীয় ঢেউ সামলাতে হাসপাতালগুলির পরিকাঠামো আগেই তৈরি রাখা ছিল। তাঁর বক্তব্য, তথ্য বা গবেষণা অনুযায়ী সেপ্টেম্বর থেকে তৃতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ওই পর্বে শিশুরা বেশিমাত্রায় সংক্রামিত হতে পারে। এই আশঙ্কায় প্রতিটি জেলা হাসপাতালে ২০ শয্যার কোভিড পিকু ওয়ার্ড খোলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সেখানে ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থাও থাকবে। পিকু ওয়ার্ড সাধারণত মেডিকেল কলেজে থাকে। তবে শিশুরা জাতির ভবিষ্যৎ। তাদের কথা মাথায় রেখে জেলা হাসপাতালগুলিতে পিকু ওয়ার্ড খোলা হচ্ছে।

- Advertisement -

এদিন সুশান্ত রায়ের সঙ্গে ছিলেন জলপাইগুড়ির মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ রমেন্দ্রনাথ প্রামাণিক। তিনি জানান, লুকসান প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের নয়া ভবনের কাজ এখনও শেষ না হওয়ায় এখনই সেখানে চিকিৎসা পরিষেবা চালু করা যাচ্ছে না। পূর্ত দপ্তরের কাছ থেকে ভবনটি হস্তান্তরিত হয়নি। সবকিছু হয়ে গেলে যত দ্রুত সম্ভব সেখানে পরিষেবা চালু করা হবে। ওই প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের দীর্ঘদিনের চিকিৎসক ডাঃ এমএন ডাকুয়া অবসর নেওয়ায় এদিন তাঁকে স্বাস্থ্য দপ্তরের তরফে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। উপস্থিত ছিলেন নাগরাকাটার ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ সুপর্ণ হালদার সহ আরও অনেকে।