নাম বিভ্রাট, করোনা আক্রান্তের বদলে সুস্থ ব্যক্তিকে আনতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে স্বাস্থ্যকর্মীরা

415

রায়গঞ্জ: করোনা পজিটিভ এক ব্যক্তিকে আনতে গিয়ে ভুল করে করোনা নেগেটিভ ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিককে বাড়ি থেকে তুলতে গিয়ে বিক্ষোভের মুখে পড়ল স্বাস্থ্য দপ্তর। রায়গঞ্জ থানার বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতের কৌলাডাঙ্গি এলাকার ঘটনা।

স্বাস্থ্যকর্মীদের এলাকায় পৌঁছতেই স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভে ফেটে পড়েন। ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ। এরপর খতিয়ে দেখে জানা যায়, পাশের গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা জগদীশপুর গ্রামের বাসিন্দা করোনার পজিটিভ রয়েছে। নাম বিভ্রাটের জেরে এই ঘটনা। ঘটনাচক্রে তাঁরা দুজনেই একসঙ্গে দিল্লিতে কর্মরত ছিল। তাঁরা দুজনেই ১৪ তারিখে রায়গঞ্জে ফিরে এবং ১৬ তারিখে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মেডিকেল টেস্ট করে দুজনেই লালার নমুনা দেয়। তাতে একজনের পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

- Advertisement -

কৌলাডাঙ্গির ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিককে পজিটিভ বলে স্বাস্থ্যকর্মীরা নিতে গিয়েছিল। তখন স্থানীয় বাসিন্দাদের বিক্ষোভের মুখে পড়ে স্বাস্থ্যকর্মীরা। শুধু তাই নয় ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিকরা ফোন নম্বর সহ ঠিকানা ভুল দেওয়ায় যাবতীয় সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তরকে। এদিকে শনিবার বিকেলে রায়গঞ্জ শহরের অশোকপল্লী এলাকারএক ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিককে করোনা পজিটিভ আসতেই তাঁকে উদ্ধার করে রায়গঞ্জের কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করে স্বাস্থ্য দপ্তর।

তার ঠিকানা রায়গঞ্জের অশোকপল্লী বলায় স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা রায়গঞ্জ শহরের অশোকপল্লী এলাকা নথিভুক্ত করে। বর্তমানে ভিনরাজ্য ফেরত ওই শ্রমিক রায়গঞ্জের ছটপারুয়া এলাকার কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তবে রায়গঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস বলেন, অশোকপল্লী এলাকায় কোনও ভিনরাজ্যে ফেরত কোনও শ্রমিক করোনা আক্রান্ত হয়নি। রায়গঞ্জ শহরে ২ নম্বর ওয়ার্ডের ১২ বছরের কিশোরী করোনা আক্রান্ত হয়ে রায়গঞ্জ কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

চেয়ারম্যানের দাবি, রায়গঞ্জ পুরসভা এলাকায় একজন মাত্র করোনা আক্রান্তের হদিস মিলেছে। বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান লায়লা খাতুন বলেন, জগদীশপুর গ্রামে এক যুবকের করোনা পজিটিভ মিলেছে। স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্তারা বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতের কৌলাডাঙ্গী গ্রামে এসে একই নামে করোনা নেগেটিভ রোগীকে উদ্ধার করে কোভিড হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে এলাকায় বিক্ষোভ হয়। পরে জানতে পারি আক্রান্ত যুবকের বাড়ি রায়গঞ্জ থানার জগদীশপুর গ্রামে।

জেলার মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রধান বলেন, ভিনরাজ্য ফেরত অনেক শ্রমিক তাঁদের নাম-ঠিকানা ও ফোন নম্বর ভুল দেওয়ায় যাবতীয় সমস্যার সূত্রপাত। এমনই ঘটনা ঘটেছে বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েতের কৌলাডাঙ্গী গ্রামে। কোভিড হাসপাতালের এক চিকিৎসক বলেন, শনিবার বিকেলে ভিনরাজ্য ফেরত শ্রমিককে অশোকপল্লী এলাকা থেকে উদ্ধার করে কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নাম ঠিকানার ক্ষেত্রে অশোকপল্লী লেখায় যাবতীয় সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।

স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, ভিনরাজ্যে ফেরত শ্রমিকরা লালার নমুনা পরীক্ষা করতে এসে নাম এবং ঠিকানা ভুল দেওয়াতেই এই সমস্যা। এদিন দুপুরে স্বাস্থ্য দপ্তর সূত্রে জানা যায়, ওই ভিন রাজ্যে ফেরত শ্রমিকের বাড়ি রায়গঞ্জ থানার বীরঘই গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। অন্যদিকে, কোভিড হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, বর্তমান ৬ জন রোগী কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।