তাপস মালাকার, নিশিগঞ্জ : মানসাই নদীতে এবার দেরিতে হলেও এখন দেখা মিলছে ইলিশ মাছের। ফলে প্রতিদিন সকাল থেকে নদীতে জাল ফেলছেন অসংখ্য জেলে। লক্ষ্য মানসাইয়ে রুপোলি শস্য ইলিশকে কবজা করা। রবিবারও নিশিগঞ্জের সোনাতলি, পূর্ব ভোগডাবরি গ্রামে মানসাই নদীতে জেলেদের জালে অসংখ্য ইলিশ ধরা পড়েছে। সেই মাছের একটি অংশ নিশিগঞ্জ মাছবাজারে এদিন বিক্রিও হয়েছে। যদিও তা সবই ছোটো আকারের খোকা ইলিশ । তাই বরফহীন টাটকা ইলিশের স্বাদ নিতে অনেকেই রবিবার নিশিগঞ্জ মাছবাজারে ছুটেছেন। নদীর পাড়েও ইতিউতি আনাগোনা ইলিশ শিকারিদের ।

স্থানীয়রা জানান, পদ্মার ইলিশের সঙ্গে স্বাদে না পারলেও মানসাইয়ে ইলিশের স্বাদ বরফ চাপা দেওয়া ইলিশের থেকে অনেক ভালো। জনৈক হারাধন রায় বলেন, নদীভাঙনের যন্ত্রণা সত্ত্বেও মানসাইয়ে সুস্বাদু মাছের স্বাদের টানেই প্রত্যন্ত পূর্ব ভোগডাবরি গ্রামে পঞ্চাশ বছরের বেশি সময় থেকে গেলাম। বাজারে বিক্রির জন্য নয়, ইলিশ পাওয়া গেলে তা নিজেদের খাওয়ার জন্যই রাখি। জালে ইলিশ উঠলে সব ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। কোচবিহারের নদীতে ইলিশ! অনেকেই বিশ্বাস করতে চান না। কিন্তু নিশিগঞ্জের কোদালধোয়া থেকে শীতলকুচির পূর্ব ভোগডাবরির মানসাই নদীর পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলিতে স্থানীয় ইলিশের স্বাদ দীর্ঘদিনের। বিগত দুবছর হঠাৎ করে বেশি মাত্রায় এই ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়লে তা নিশিগঞ্জ বা মাথাভাঙ্গার মাছবাজারেও দেখা মেলে ।

- Advertisement -

কিন্তু ইলিশ কী করে মানসাইয়ে বুকে এল? জলঢাকা নদীর মাথাভাঙ্গায় স্থানীয় নাম মানসাই। বোরোলি সহ নানা সুস্বাদু নদীয়ালি মাছ সারা বছর পাওয়া যায় এখানে। কিন্তু সব কিছু ছাপিয়ে কখনো-কখনো যে ইলিশের দেখা মেলে তা অনেকেরই অজানা। কোচবিহারের মৎস্য দপ্তরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, স্বাদ ও গন্ধ একটু কম হলেও ছোটো আকারের ইলিশ মানসাইয়ে পাওয়া যায়। মাথাভাঙ্গার মানসাই সিতাইয়ে ধরলা নদী হয়ে তা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। বাংলাদেশে এই নদী ব্রহ্মপুত্রের সঙ্গে মিশেছে। ব্রহ্মপুত্রের সঙ্গে সংযোগ রয়েছে পদ্মার।

আর এই নদীপথ প্রায় চারশো কিমির কাছাকাছি দূরত্বের। বাংলাদেশে পদ্মা, মেঘনা, ব্রহ্মপুত্রে পাওয়া যায় ইলিশ। ইলিশ সমুদ্রের মাছ, কিন্তু ডিম পাড়ে নদীর মিষ্টি জলে। ফলে স্রোতের উলটো দিকে প্রায় এক হাজার কিমি দূরত্বের নদীতে চলে যায় ইলিশ। ডিম ফুটে মাছ একটু বড়ো হলে ফের তারা সমুদ্রে চলে যায়। তাই ব্রহ্মপুত্র থেকে ইলিশ মানসাইয়ে বুকে প্রতি বছর স্বাভাবিক নিয়মেই চলে আসে। নিশিগঞ্জ বাজারের জনৈক মাছ বিক্রেতা জানান, কয়েকদিন ধরেই মানসাইয়ে ইলিশ মাছ নিশিগঞ্জ বাজারে আসছে। এদিন মানসাইয়ে খোকা ইলিশ চারশো টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে।