কোচবিহার, ২৭ জানুয়ারিঃ বাড়িতে দেহব্যবসা চালানোর অভিযোগে দুই যুবতি সহ তিনজনকে আটক করল পুন্ডিবাড়ি থানার পুলিশ। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার শহর সংলগ্ন মহিষবাথানের ডুমুরতলা এলাকায়। জানা গিয়েছে, ওই এলাকায় একটি বাড়িতে দীর্ঘদিন ধরেই বহিরাগত যুবক-যুবতিদের আনাগোনা চলছিল। সেখানে দেহব্যবসা চলে বলে গ্রামবাসীদের অভিযোগ। এদিন এক যুবতির চিৎকারে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। স্থানীয় বাসিন্দারা ওই বাড়িতে গিয়ে এক মহিলাকে মারধর করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পুলিশ ওই বাড়ির মালিকের স্ত্রী ও ভীন রাজ্যের দুই যুবতিকে আটক করে নিয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, কী উদ্দেশ্যে ওই বাড়িতে বহিরাগত ছেলে-মেয়েদের আনাগোনা ছিল তা তাঁরা জানতেন না। এদিন সকালে বাড়ির ভিতর থেকে এক যুবতির চিৎকার ও কান্নার আওয়াজ পেলে গ্রামবাসীরা সেখানে পৌঁছান। হাত, পা বেঁধে তাকে মারধর করা হচ্ছিল বলে গ্রামবাসীদের সে জানায়। যুবতিটি গ্রামবাসীদের আরও জানায় যে, কাপড়ের দোকানে কাজ করার কথা বলে তাকে সেখানে নিয়ে আসে জোর করে দেহব্যবসার কাজ করানো হচ্ছে। এরপরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন এলাকার বাসিন্দারা। তাঁরা বাড়ির মালিকের স্ত্রীকে সেখানে মারধর করে। বাড়ির মালিক পলাতক। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।