কামাখ্যাগুড়ি কলেজে ২৪ বছরেও বিজ্ঞানে অনার্স চালু হয়নি

অরিন্দম চক্রবর্তী, কামাখ্যাগুড়ি : কামাখ্যাগুড়ির শহিদ ক্ষুদিরাম কলেজে বিজ্ঞানে অনার্স চালুর দাবি জানিয়েছেন পড়ুয়া ও অভিভাবকরা। আলিপুরদুয়ার জেলার একমাত্র আলিপুরদুয়ার কলেজেই বিজ্ঞানে অনার্স পড়ার সুযোগ পায় পড়ুয়ারা। বাকি কলেজগুলিতে পাশ কোর্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুযোগ থাকলেও, অনার্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুযোগ নেই। তাই বাধ্য হয়ে তাদের কোচবিহার, জলপাইগুড়ি বা শিলিগুড়ির কলেজে ভর্তি হতে হয়। কিন্তু বর্তমানে করোনা পরিস্থিতির কারণে পড়ুয়ারা বাইরের কলেজের তুলনায় স্থানীয় কলেজকেই প্রাধান্য দিতে চাইছে। কিন্তু জেলার বেশিরভাগ কলেজেই অনার্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুযোগ না থাকায় সমস্যায় পড়ুয়ারা।

একই সমস্যা কুমারগ্রাম ব্লকের কামাখ্যাগুড়ি শহিদ ক্ষুদিরাম কলেজেও। ১৯৯৬ সালে কলেজ প্রতিষ্ঠা হয়। প্রায় ৪ বছর আগে কলেজে পাশ কোর্সে বিজ্ঞান বিভাগে পঠনপাঠন শুরু হয়। কিন্তু অনার্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুযোগ নেই। যদিও কলেজের তরফে জানানো হয়েছে, এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। এ বছর উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ বারবিশার মেধাবী ছাত্র মৃত্যুঞ্জয় বর্মন বলেন, পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। করোনা পরিস্থিতিতে বাইরের কলেজে ভর্তি হতেও ভয় হচ্ছে। কিন্তু কাছাকাছি কামাখ্যাগুড়ি শহিদ ক্ষুদিরাম কলেজে অনার্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুবিধা নেই। তাই বিকল্প উপায় খুঁজতে হবে। একই বক্তব্য কামাখ্যাগুড়ি হাইস্কুল থেকে উচ্চমাধ্যমিক উত্তীর্ণ ছাত্র তাপস দেবনাথের। কামাখ্যাগুড়ির বাসিন্দা প্রবীর দেব বলেন, কামাখ্যাগুড়ির এই কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে অনার্স চালু হলে পড়ুয়াদের বাইরে যেতে হবে না। আশপাশের পড়ুয়ারাও উপকৃত হবে।

- Advertisement -

কলেজ সূত্রে জানা গিয়েছে, কলেজে ছাত্র সংখ্যা পাঁচহাজারেরও বেশি। উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের অর্থানুকূল্যে কলেজে ত্রিতল ভবনের কাজ জোরকদমে চলছে। কলেজের টিচার ইন চার্জ অজয়কুমার দত্ত বলেন, বিজ্ঞানের বিষয়গুলির জন্য কোনও স্থায়ী শিক্ষক নেই। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে কাছে আবেদন জানানো আছে। কলেজের পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা কুমারগ্রাম পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ শুক্লা ঘোষ বলেন, আলিপুরদুয়ার কলেজ ছাড়া জেলার কোনও কলেজেই অনার্সে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সুযোগ নেই। আমাদের কলেজে বিজ্ঞানে অনার্স চালু হলে অনেক শিক্ষার্থী উপকৃত হবে। আমরা ইতিমধ্যেই বিজ্ঞানে অনার্স চালুর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে কাছে আবেদন জানিয়েছি। ওই বিষয়গুলির জন্য স্থায়ী অধ্যাপক না থাকায় সমস্যা হচ্ছে। স্থায়ী অধ্যাপক ও বিজ্ঞানে অনার্স চালুর বিষয়ে সোমবার পরিচালন সমিতির মিটিংয়ে আলোচনা হবে।