রাত থেকে ওয়ার্ডেই পড়ে রইল মৃতদেহ, আতঙ্কে করোনা আক্রান্তরা

60

বর্ধমান: করোনা আক্রান্ত রোগীদের ওয়ার্ডের বেডেই শুক্রবার রাত থেকে পড়ে রইল এক বৃদ্ধার মরদেহ। ঘটনায় শনিবার সকাল থেকে ব্যাপক ক্ষোভ-বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে পূর্ব বর্ধমানে কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রোগী মহলে। এদিকে ক্ষোভ-বিক্ষোভ শুরু হতেই বেলার দিকে নড়েচড়ে বসে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সরানো হয় মৃতদেহ। যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সাফাই কোভিড প্রটোকল মেনে কাজ করতে গিয়ে মরদেহ সরাতে বিলম্ব হয়েছে।

কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের তিন তলায় ঝাঁ চকচকে কোভিড ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। সেই ওয়ার্ডেই শুরু হয়েছে কোভিড আক্রান্তদের চিকিৎসা। ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বেশ কয়েকজন রোগীও। ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন থাকা কোভিড আক্রান্ত এক মহিলা রোগীর আত্মীয় স্বপন কুমার দে জানান, চিকিৎসা শুরু হলেও কালনা হাসপাতালের কোভিড ওয়ার্ডে অব্যাবস্থা রয়েই গিয়েছে। শুক্রবার মধ্য রাতে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়। তারপর থেকে ওই মৃতদেহ বেডেই পড়ে থাকে। মৃতদেহ ঢাকা দেওয়াও হয় না। এদিন সকাল থেকে ওই মৃতদেহ দেখে ওয়ার্ডে থাকা অন্য কোভিড আক্রান্ত রোগীদের মৃত্যু ভয় বাড়তে শুরু করে। মৃতদেহ অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ার জন্যে ওয়ার্ডে থাকা অন্য রোগীরা বারবার বলে চললেও হাসপাতালের তরফে কেউ হেলদোল দেখান না। এমনকি চিকিৎসক ও নার্সকে জানাবার পরেও কেউ দেহ সরাতে আসেন না। এভাবে বেলা ১২ টার কাছাকাছি সময় পর্যন্ত ওয়ার্ডের বেডে বৃদ্ধার মৃতদেহ পড়ে থাকলে রোগীদের অসন্তোষ তীব্র হয়ে ওঠে। পরে কালনা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ দেহ সরিয়ে নেয়। রোগী পরিজনদের অভিযোগ মৃতদেহ সরানো না হওয়া পর্যন্ত চিকিৎসা পরিষেবা দিতেও ওই ওয়ার্ডে যাননি কোনও চিকিৎসক ও নার্স।

- Advertisement -

কালনা মহকুমা হাসপাতালের সুপার অরূপরতন করণ এই বিষয়ে বলেন, ‘রোগীর পরিজনদের সঙ্গে কথা বলে কোভিড প্রটোকল মেনে দেহ সরাতে হয়। সেই সব কাজ সম্পূর্ণ করে বেলা ১২টা’র মধ্যেই মৃতদেহ সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।