গাড়িতে নীল বাতি, বিতর্কে হাসপাতাল সুপার

202

রায়গঞ্জ: এক্তিয়ার নেই! তবুও চড়ছেন নীল বাতির গাড়িতে। এমনই অভিযোগ উঠল রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সুপার প্রিয়ঙ্কর রায়ের বিরুদ্ধে। ঘটনায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে বিভিন্ন মহলে। অন্যদিকে, সুপারের এক্তিয়ার নিয়ে প্রশ্ন তুলে ধরেছেন পরিবহণ দপ্তরের আধিকারিকরা। সরব হয়েছেন রাজনৈতিক মহলের ব্যক্তিত্বরাও। যদিও সুপার অবশ্য জানিয়েন, নীল বাতি ব্যবহার করতে পারবেন কিনা তা জানা নেই তাঁর। ঘটনায় উচ্চপর্যায়ের তদন্তের দাবি জানিয়েছেন উত্তর দিনাজপুর নাগরিক কমিটির সদস্যরা।

পুরোনো গাড়ি বদল করে সম্প্রতি নতুন গাড়িতে চড়ছেন রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সুপার প্রিয়ঙ্কর রায়। অভিযোগ, সেই গাড়িতেই লাগানো রয়েছে নীল বাতি। যদিও বিষয়টি নাকি সঠিক জানা নেই সুপারের। তাঁর সাফাই ওই নীল বাতি আগে থেকেই লাগানো ছিল গাড়িতে। এক্ষেত্রে হাসপাতালের একাংশ কর্মীদের প্রশ্ন, সুপারের অনুমতি ছাড়া কেউ কি নীল বাতি লাগাতে পারে? একই প্রশ্ন তুলে ধরেছেন চিকিৎসকদের একাংশও। এমতবস্থায় সুপারের বিরুদ্ধে নীল বাতি অপব্যবহারের অভিযোগ তুলে ধরেছেন অনেকেই। অন্যদিকে, রাজনৈতিক মহলের একাংশের প্রশ্ন, দায়িত্বশীল আধিকারিকরা কীভাবে এই ঘটনার প্রশ্রয় দিচ্ছেন?

- Advertisement -

পরিবহণ দপ্তরের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, স্বাস্থ্য দপ্তরের ওই পদাধিকারীর গাড়িতে এধরনের বাতি ব্যবহারের কোনও এক্তিয়ার নেই। জেলা পরিবহণ দপ্তরের আধিকারিক সুজস কুমার বলেন, ‘গুগল সার্চ করলেই দেখা যায় কারা নীল বাতির গাড়ি ব্যবহার করতে পারবেন এবং কারা পারবেন না। বিষয়টি খতিয়ে দেখে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

উত্তরদিনাজপুর নাগরিক কমিটির সম্পাদক তপন চৌধুরী বলেন, ‘১৫ দিন ধরে ওই নতুন গাড়িতে ঘুরছেন সুপার। বিষয়টি নিয়ে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত প্রয়োজন।’