নদীর বুকে পিলার তুলে বাড়ি, মাটিগাড়ায় নির্বিকার প্রশাসন

254

খোকন সাহা, বাগডোগরা : মাটিগাড়ায় শিশুডাঙ্গিতে পঞ্চনই নদীতে সিমেন্টের পিলার তুলে বাড়ি ও দোকান তৈরি হচ্ছে। নদীর স্বাভাবিক গতি রোধ করে অবৈধভাবে নির্মাণকাজ চললেও প্রশাসন নির্বিকার রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রশাসনের এমন ভূমিকায় বিভিন্ন মহল থেকে নানা প্রশ্নও উঠছে। যদিও মাটিগাড়া বিএলআরও জানান, একবার আমি কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলাম। আবারও কাজ শুরু হলে বিষয়টি দেখা হবে।
মাটিগাড়া-২ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার জোড়াপুলের পরেই পঞ্চনই নদীর উপর সেতু ঘেঁষে বাড়ি তৈরি হচ্ছে। নদীর মধ্যেই সিমেন্টের পিলার তুলে এই নির্মাণকাজ চলছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, বিল্ডিংয়ের নকশার অনুমোদন ছাড়াই প্রকাশ্যেই নির্মাণকাজ চললেও প্রশাসন নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। তাঁদের অভিযোগ, ওই ব্যক্তি অনেকদিন ধরে নির্মাণকাজটি চালাচ্ছেন।
মাটিগাড়া-২ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান প্রিয়াঙ্কা বিশ্বাস বলেন, ‘শুধু ওখানেই নয় পতিরামজোত, শিমুলতলা এলাকায় নদীর চর দখল করে কেনাবেচা, নদীর মধ্যে বাড়িঘর বানানো হচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে আমি এসডিও, বিডিও এমনকি মুখ্যমন্ত্রীকেও চিঠি দিয়েছি। অথচ আশ্চর্যের বিষয়, কেউ কোনও ব্যবস্থাই নিচ্ছেন না। কারা এর পেছনে মদত দিচ্ছে কিছুই বুঝতে পারছি না।’ মাটিগাড়ার বিএলআরও দুর্জয় রায় বলেন, ‘এর আগে আমি ওখানে কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলাম। মাটিগাড়া থানাতেও অভিযোগ করেছিলাম। আবার যদি কাজ শুরু হয়, তবে আমি আমার দপ্তরের লোক পাঠিয়ে ব্যবস্থা নেব।‘ মাটিগাড়া ব্লকের বিডিও রুনু রায় বলেন, ‘আমার মনে পড়ছে না কবে আমাকে গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তবে চিঠি দিয়ে থাকলে আমি তদন্ত করে যথাস্থানে রিপোর্ট পাঠিয়ে দিয়েছি। নদী দখল করে বিল্ডিং বানালে তা সেচ দপ্তরের দেখা উচিত।‘