পণের দাবিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগে গ্রেপ্তার স্বামী

221
হরিশ্চন্দ্রপুরে গৃহবধূ খুনের ঘটনায় তদন্তে পুলিশ

হরিশ্চন্দ্রপুর: পণের দাবিতে স্ত্রীকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামীর বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার মালদা জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর থানার ফতেপুর গ্রামে ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ায়। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃতার নাম মুন্নি বিবি (২৪)। মৃতার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী পাপ্পু আনসারিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, রতুয়া থানার বাহারালের রাঘববাটি এলাকার মুন্নি খাতুনের সঙ্গে ফতেপুরের পাপ্পু আনসারির বিয়ে হয় ছয় বছর আগে। তাঁদের দুই পুত্র সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর থেকেই পণের দাবি সহ নানা অছিলায় পাপ্পু মুন্নির উপর নির্য়াতন চালাত বলে অভিযোগ। পাপ্পু এলাকায় দর্জির কাজ করত। তবে গ্রামীণ এলাকায় দর্জির কাজ করে রোজগার ভালো হত না। তাই অভাব অনটনের সংসারে মাঝেমধ্যেই স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া মারধর চলত বলে অভিযোগ। স্থানীয়দের একাংশ জানান, পাপ্পু সবরকম নেশায় আসক্ত ছিল। হামেশাই নেশাগ্রস্ত হয়ে স্ত্রীকে গালিগালাজ ও মারধর করত। মেয়ের উপর নির্য়াতনের কথা জেনে গৃহবধূর বাবা, মা, কাকারা একাধিকবার ফতেপুরে এসে পাপ্পুকে বোঝান। তখন পাপ্পু সকলের সামনে স্বীকার করে আর মুন্নির উপর নির্য়াতন করা হবে না। তারপরও পরিস্থিতি পাল্টায়নি।

- Advertisement -

গতকাল গভীর রাতে পাপ্পু তাঁর শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে খবর দেয় মুন্নি আত্মহত্যা করেছে। মেয়ের মৃত্যুর খবর শুনে আজ সকালে ফতেপুর গ্রামে ছুটে আসেন গৃহবধূর বাবার বাড়ির লোকজন। তাঁরা ঘটনাস্থলে এসে দেখেন মুন্নির মৃতদেহ বারান্দায় পড়ে রয়েছে।
মৃতার পরিবারের লোকজনের দাবি, মৃতার দেহে বেশ কয়েক জায়গায় ক্ষতচিহ্ন রয়েছে। তাঁর কাকা আজম আনসারি বলেন, ‘আমার ভাইঝি মুন্নি আত্মহত্যা করেনি। তাঁর স্বামী মুন্নিকে পিটিয়ে খুন করে বারান্দায় ফেলে রেখে আমাদের খবর দেয় যে সে আত্মহত্যা করেছে। মুন্নি আত্মহত্যার পাত্রী নন। আসলে তার স্বামী খুন করে আত্মহত্যার নাটক সাজিয়েছে। পুলিশ তদন্ত করলে সব জানা যাবে।’

আজ গৃহবধূর পরিবারের তরফে হরিশ্চন্দ্রপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। গৃহবধূর দেহ ময়নাতদন্তের জন্য মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এই প্রসঙ্গে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জয়কুমার দাস বলেন, ‘গৃহবধূকে খুনের অভিযোগে তাঁর স্বামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।’