গৃহবধূর রহস্য মৃত্যু

382

বর্ধমান: শ্বশুর বাড়িতে রহস্যজনক মৃত্যু হল এক বধূর। মৃতার নাম কবিতা বসু(৪৮)। পূর্ব বর্ধমানের ভাতার থানার আমারুন ২ পঞ্চায়তের খেরুর গ্রামে বধূর শ্বশুর বাড়ি। বুধবার সকালে শ্বশুর বাড়ির ঘরের মেঝে থেকে ওই বধূর দেহ উদ্ধার হয়। ঘটনা জানাজানি হতেই খেরুর গ্রামে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে ভাতার থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান হাসপাতালের পুলিশ মর্গে পাঠানো হয়। ঘটনায় বধূর বাপের বাড়ির সদস্যরা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের না করলেও তাদের মেয়েকে খুন করা হয়েছে বলে অভিযোগ তোলেন। যদিও পুলিশ অস্বাভিক মৃত্যুর মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

বধূর বাবা মোহন চন্দ্র মাঝির অভিযোগে, ‘বিয়ের পর থেকেই তাঁর মেয়ে কবিতার সঙ্গে জামাই তাপস বসু দুর্ব্যবহার করতেন। দু’দিন আগেও তাঁর মেয়ে কবিতার সঙ্গে ঝগড়া করে তাপস। মোহনবাবু বলেন, আমাদের অনুমান জাামাই ও তাঁর মা মিলে কবিতাকে প্রাণে মেরে দিয়েছে।’ যদিও শ্বশুরের অভিযোগ মানতে চাননি কবিতা বসুর স্বামী তাপস বসু। তিনি বলেন, প্রতিটি সংসারে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে যেমন খুটিনাটি অশান্তি হয় তেমনটাই তাঁর সঙ্গে তাঁর স্ত্রীর হত। তবে তাঁর স্ত্রী সবেতেই মাথা গরম করতো।

- Advertisement -

তাপসবাবুর দাবি, কবিতাকে কেউ প্রাণে মরেনি। কবিতা আত্মহত্যা করেছে। ভাতার থানার পুলিশের এক কর্তা বলেন, কীভাবে বধূর মৃত্যু হয়েছে তা এখনও পরিস্কার নয়। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানাযাবে। বধূর পরিবার এখনও থানায় কোন অভিযোগ জানায়নি। ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ভিত্তিতে পরবর্তি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।