পেটে আঘাত করে মহিলার গর্ভজাত সন্তানকে নষ্ট করায় গ্রেপ্তার স্বামী ও ভাসুর

190
প্রতীকী ছবি

বর্ধমান: পেটে আঘাত করে এক মহিলার গর্ভের সন্তান নষ্ট করে দেওয়ার অভিযোগে তাঁর স্বামী ও ভাসুরকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ। ধৃতদের নাম সাদ্দাম শেখ ও সামাত শেখ। অভিযুক্তদের বাড়ি পূর্ব বর্ধমানের ভাতার থানার আমবোনা গ্রামে। ভাতার থানার পুলিশ বৃহস্পতিবার রাতে বাড়ি থেকে তাদের গ্রেপ্তার করে। শুক্রবার দুই ধৃতকে পেশ করা হয় বর্ধমান আদালতে। বিচারক ধৃতদের বিচার বিভাগীয় হেপাজতে পাঠিয়ে আগামী শুক্রবার ফের আদালতে পেশের নির্দেশ দিয়েছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নির্যাতিতা মহিলার নাম চুমকি বেগম। বছর চারেক আগে ভাতারের আনবোনার যুবক সাদ্দামের সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়। বিয়েতে চাহিদা অনুযায়ী পণ দিয়েছিল চুমকির বাবার বাড়ির লোকজন। তারপরেও যৌতুকের পরিমাণ নিয়ে প্রশ্ন তুলে চুমকিকে মানসিক নির্যাতন শুরু করে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। পরবর্তীতে দাবি অনুযায়ী আরও টাকা পয়সা দেওয়া হলেও অত্যাচার বন্ধ হয়নি। এরপর চুমকি ৪ মাসের অন্তঃসত্ত্বা থাকার সময়ে তাঁকে গর্ভপাত করার জন্য চাপ দেয় শ্বশুরবাড়ির সদস্যরা। তাতে রাজি না হওয়ায় অত্যাচার ক্রমশ বাড়ে। ২০১৮ সালের ৩০ অগাস্ট অন্তঃসত্ত্বা চুমকিকে পেটে আঘাত করে তাঁর বাড়ির লোকজন। এরপর তিনি মৃত সন্তান প্রসব করেন। এরপর ফের চুমকি অন্তঃসত্ত্বা হলে তাঁকে বাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয়। এই ঘটনার বিচার চেয়ে বর্ধমান আদালতে মামলা করেন ওই বধূ। এরপরই গতকাল তাঁর স্বামী ও ভাসুরকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

- Advertisement -