গৃহবধূকে বিষ খাইয়ে খুনের অভিযোগ স্বামীর বিরুদ্ধে  

150
ফাইল ছবি

রায়গঞ্জ: দাবিমতো পণের টাকা না মেলায় গৃহবধূকে বিষ খাইয়ে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে। রায়গঞ্জের সিদ গ্রাম পঞ্চায়েতের ধোয়াবিশুয়া গ্রামে এমন ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ঘটনার পর থেকেই স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক।

পুলিশ ও পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, এক বছর আগে পানিশালার বাসিন্দা আদরি খাতুনের সঙ্গে ধোয়াবিশুয়া গ্রামের হাসেন আলির বিয়ে হয়। বিয়ের সময় পণ বাবদ দুই লক্ষ টাকা দেওয়ার কথা থাকলেও মেয়ের বাড়ির তরফে দেড় লক্ষ টাকা দিয়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা বাকি রাখা হয়। সেই টাকার জন্যই গণ্ডগোলের সূত্রপাত। অভিযোগ, আদরিকে বাপের বাড়ি থেকে টাকা আনার জন্য চাপ দিতেন স্বামী হাসেন আলি। তাঁকে প্রায়ই মারধর করা হতো বলে অভিযোগ। সমস্যা মেটাতে একাধিকবার সালিশি সভাও হয়। কিন্তু লাভ হয়নি।

- Advertisement -

মৃতার বাবা শফিকুল ইসলামের অভিযোগ, ‘পণের বাকি টাকার জন্য জামাই ও তাঁর পরিবারের কাছে এক বছর সময় চেয়ে নেওয়া হয়েছিল। একাধিকবার সালিশি সভাও হয়। রবিবার রাতে মেয়েকে জোর করে বিষ খাইয়ে খুনের চেষ্টা করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। প্রতিবেশীরা মেয়ের চিৎকার শুনে ছুটে আসতেই বাড়ি থেকে পালিয়ে যান স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির লোকজন।‘

স্থানীয় বাসিন্দারাই ওই গৃহবধূকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যান। খবর দেওয়া হয় তাঁর বাপের বাড়ির লোকজনকে। সোমবার সকালে ওই গৃহবধূর মৃত্যু হয়। এদিন বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ ময়নাতদন্তের পর মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেয় রায়গঞ্জ থানার পুলিশ। মৃতার পরিবারের তরফে খুনের অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

মৃতার বাবা শফিকুল ইসলামের অভিযোগ, ‘আমার মেয়েকে বিষ খাইয়ে খুন করেছে জামাই ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক।‘ ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্ত স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ি। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তল্লাশি শুরু করেছে। রায়গঞ্জ থানার পুলিশ আধিকারিক বলেন, ’পাঁচ জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তদন্ত চলছে।‘