কাটমানি কাঁটায় বিদ্ধ বিজেপি পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী

140

হরিশ্চন্দ্রপুর: দিনমজুর মা ও ছেলেকে যোজনার ঘর পাইয়ে দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা নেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপি পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামীর বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লক এলাকার কুশিদা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায়। এই গ্রাম পঞ্চায়েতের কাঁপাই চন্ডী এলাকার লক্ষীপুরের বিজেপির পঞ্চায়েত সদস্য প্রতিমা মন্ডল রায়ের স্বামী পবিত্র রায়ের বিরুদ্ধে আবাস যোজনাতে কাটমানি নেওয়ার অভিযোগ এনে বিডিও’র দ্বারস্থ হয়েছে ওই দিনমজুরের পরিবার।

অভিযোগকারী দিপালী মণ্ডল ও তাঁর ছেলে পরিযায়ী শ্রমিক বাদল মণ্ডল। তাঁদের অভিযোগ, আবাস যোজনার ঘরের টাকার প্রথম কিস্তির ৬০ হাজার টাকা পাওয়ার জন্য প্রথমে ১০ হাজার টাকা ও পরবর্তীতে আরও ১৫ হাজার টাকা দিতে বলা হয়েছিল পঞ্চায়েত সদস্যের স্বামী পবিত্র রায়কে। অন্যদিকে দিপালী মণ্ডলের ছেলে স্ত্রীর নামে ঘর পাইয়ে দেওয়া হবে বলে অগ্রিম ৫ হাজার টাকা নেওয়া হয়। তবে, বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও পর্যন্ত কোনও টাকা মেলেনি।

- Advertisement -

বাদল মন্ডল বলেন, ‘আমি ভিন রাজ্যের শ্রমিকের কাজ করি। সুদে ধার করে টাকা দিয়েছি।এখন বাধ্য হয়ে হরিশ্চন্দ্রপুরের বিডিও অফিসে অভিযোগ দায়ের করেছি।’

অভিযুক্ত বিজেপি পঞ্চায়েত সদস্যার স্বামী পবিত্র রায় জানান, ঘর করে দেওয়ার নাম করে আমি কারও কাছ থেকে টাকা নেইনি। তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মীরা আমাকে ফাঁসানোর উদ্দেশ্যে চক্রান্ত করছে। তৃণমূলের হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লক সভাপতি মানিক দাস জানান, বিজেপি ক্ষমতায় আসার আগেই কাটমানি ইস্যুতে জর্জরিত হয়ে পড়ছে। এখন থেকেই গরিব মানুষদের লুট করছে। বিজেপির হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর মণ্ডল সভাপতি রুপেশ আগরওয়াল জানান, সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগ। এর বিরুদ্ধে ওরা কোনও প্রমাণ দিতে পারবে না। আর যদি আমরা প্রমাণ পাই তাহলে ওই বিজেপি সদস্যার বিরুদ্ধে দল ব্যবস্থা নেবে। বিডিও অনির্বাণ বসু জানান, ব্লক প্রশাসনের তরফে অভিযোগ খতিয়ে দেখা হবে।