বর্ধমানে পরকীয়ার জেরে যুবককে খুনের ঘটনায় গ্রেফতার স্বামী ও স্ত্রী

535

বর্ধমান ৪ অগাস্ট:  পরকীয়া সম্পর্ক ছিন্ন করতে না চাওয়া  যুবককে খুনের অভিযোগে প্রেমিকা ও তাঁর স্বামীকে গ্রেফতার করল পুলিশ ।  চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে বর্ধমানের  ভোতারপাড় এলাকায়। পুলিশ সূত্রে জানাগেছে , ধৃতদের নাম  আশা রায় ও বাপি রায় । ঘটনার পরথেকে  গা ঢাকা দিয়ে থাকা এই  দুই  অভিযুক্তকে  শনিবার রাতে  গ্রেফতার করে বর্ধমান থানার  পুলিশ ।  রবিবার ধৃতদের পেশ করা হয় বর্ধামান আদালতে।
পুলিশ সূত্রে  জানাগিয়েছে , গত ২৯ জুলাই বিকালে  বর্ধমানের বিজয়রামের মালিরগড় এলাকা থেকে উদ্ধার হয় কার্তিক  ঘোষ (৩০) নামে এক যুবকের ক্ষত বিক্ষত মৃতদেহ । মৃতের দাদা শংকর ঘোষ পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন, তাঁর  ভাইকে খুন করা হয়েছে । খুনের নেপথ্যে রয়েছে এলাকারই এক বিবাহিত মহিলা । এই অভিযোগ পাওয়ার পরেই নড়ে চড়ে বসে পুলিশ ।  শুরু হয় মহিলার খোঁজ । জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার  প্রিয়ব্রত রায় জানিয়েছেন ,খুনের ঘটনার পরেই অন্যত্র  গা ঢাকা দেয়  মহিলা আশা ও বাপি। খোঁজ চালিয়ে   শনিবার রাতে   বর্ধমানের নেড়াগোয়ালিয়া থেকে আশা রায় কে গ্রেফতার করা হয় । পরে মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ তাঁর স্বামী  বাপি রায়কে মেমারির  মণ্ডলগ্রামে থেকে গ্রেফতার করা হয়। জেরায় ধৃতরা যুবকে খুনের কথা কবুল করেছে। খুনের পরিকল্পনা নিয়ে গত  ২৮ জুলাই রাতে  তারা  কার্তিক ঘোষকে  শক্তিগড়ের একটি আবাস যোজনার ঘরে ডেকে নেয় । কার্তিক  সেখানে পৌছাতেই  বাপি রায়  ধারাল কাস্তে দিয়ে তার উপর হামলা চালায় । পরে ভারি ইট দিয়ে  তাঁর  মাথায় আঘাত করে। যুবক মারা যাবার পর  রাতের অন্ধকারে তার মৃতদেহ  মালিরগড় এলাকায়  ফেলে রেখেদিয়ে পালায় দম্পতি। যুবককে খুনের কারণ প্রসঙ্গে মহিলা পুলিশকে জানিয়েছে , কার্তিক তাঁকে বিয়ে করতে চাওয়ায়  সে রাজি হয়নি। কার্তিকের জন্যই সন্তানদের নিয়ে  তাঁদের অন্যত্র গিয়ে  বসবাস করতে হচ্ছিল। এই অবস্থা থেকে নিস্কৃতি পেতেই  তাঁরা কার্তিক কে খুনের পরিকল্পা  করে।