কেরিয়ারের জন্য বিরাট-ঋণ সিরাজের

হায়দরাবাদ : ২০১৭-য় আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অভিষেক।

শুরুটা টি২০ দিয়ে। তারপর ওডিআই এবং গত বছর টেস্ট আঙিনায় পা রাখা। নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবার থেকে মহম্মদ সিরাজের লড়াকু উত্থান, স্যার ডনের দেশে সফল টেস্ট অভিষেক দ্রুত ক্রিকেটমহলের মন জিতে নেয়। বদলে যাওয়া সিরাজের সাফল্য অব্যহত ছিল স্থগিত হয়ে যাওয়া চতুর্দশ আইপিএলে।

- Advertisement -

ক্রিকেট কেরিয়ারে নিজের এই প্রাপ্তির কৃতিত্বটা সিরাজ দিচ্ছেন বিরাট কোহলিকেই। মহম্মদ আজহারউদ্দিনের শহরের তারকার বলেন, বিরাটভাইকে সবসময় পাশে পেয়েছি। পরিস্থিতি যাইহোক না কেন, আমাকে সমর্থন জুগিয়েছে, সাহস দিয়েছে। অস্ট্রেলিয়া সিরিজের সময় বাবাকে হারাই। মানসিকভাবে বিধ্বস্ত। খুব কান্নাকাটি করছিলাম। বিরাটভাই আমার ঘরে এসে বুকে টেনে নেয়। জড়িয়ে ধরে বলে, চিন্তা করিস না। তোর পাশে আছি। সেদিন ওই কথাগুলি আমাকে শক্তি জুগিয়েছিল। সফরে বিরাটভাই মাত্র একটা টেস্ট খেলে। কিন্তু ওর কথাগুলি আমাকে সিরিজে অনুপ্রেরণা জোগায়। আমার এই কেরিয়ারও বিরাটভাইয়ে জন্যই। আমি ঋণী ওর কাছে।

২০১৫-তে ক্রিকেটকে সিরিয়াসভাবে নেওয়া। পরের বছর হায়দরাবাদের হয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে সাফল্য। ২০১৭-য় বাবার স্বপ্ন সফল করে একেবারে জাতীয় দলে ডাক। তবে আরসিবিতে বিরাটের নেতৃত্বে খেলা সিরাজকে বদলে দেয়। ভারতীয় দলের নতুন পেস তারকার মতে, বিরাটভাই সবসময় বলে, তোর ক্ষমতা রয়েছে। তুই পারবি। যেকোনও উইকেটে সফল হওয়া, যেকোনও ব্যাটসম্যানকে আউট করার ক্ষমতা রয়েছে তোর মধ্যে।

জীবন বদলে যাওয়া অস্ট্রেলিয়া সফর? সিরাজ যে প্রসঙ্গে বলেন, অভিষেকের পর একটাই টার্গেট দলের হয়ে একশো ভাগ দেওয়া। আর দলের জয় সবসময় স্পেশাল অনুভতি। অস্ট্রেলিয়া সফর আমাকে প্রচুর আত্মবিশ্বাস জুগিয়েছে। ইংল্যান্ড সফরেও সেই আত্মবিশ্বাস নিয়ে নামতে চাই।