ধোনির স্বীকৃতিতে ভুল স্বীকার বেলের

সংগৃহীত

লন্ডন : ২০১১ থেকে ২০২০।

ফেলে আসা দশকে আইসিসি স্পিরিট অফ দ্য ক্রিকেট-এর সেরার সম্মান পান মহেন্দ্র সিং ধোনি। ক্রিকেট আইন মেনে প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানকে রানআউট করেন। যদিও পরে নিজের দাবি বদলে সেই ব্যাটসম্যানকেই খেলার সুযোগ করে দেন! মাহির যে আচরণকেই দশকের সেরা স্পিরিট অফ দ্য ক্রিকেট হিসেবে গত ডিসেম্বরে বেছে নেয় আইসিসি।

- Advertisement -

ধোনির জন্য সেদিন বেঁচে যাওয়া ইয়ান বেল এতদিন এব্যাপারে চুপ ছিলেন। ধোনি সেরার স্বীকৃতি পাওয়ার পর বেশ কয়েক মাস কেটে গেলেও কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি ইংরেজ তারকার থেকে। অবশেষে মুখ খুলে নিজের ভুল স্বীকার করে নিলেন। জানিয়ে দিলেন, তার ভুলেই সেদিন ওই ঘটনাটি ঘটেছিল। ২০১১-র নটিংহ্যাম টেস্ট। চা পান বিরতির আগে শেষ বলটা খেলেন ইয়োন মরগ্যান। বলটা মারার পর মরগ্যান ভেবেছিলেন বাউন্ডারি পেরিয়ে গিয়েছে। সাজঘরের দিকে হাঁটা লাগান। নন-স্ট্রাইকার প্রান্তে থাকা ইয়ান বেলও মরগ্যানের সঙ্গে যোগ দেন। যদিও প্রবীণ কুমার বাউন্ডারির আগে বল আটকে ধোনির কাছে ছুঁড়ে দেন। মাহির থেকে বল পেয়ে বেলকে রানআউট করেন অভিনব মুকুন্দ। আম্পায়ারও আউট দেন।

চা বিরতির পর অবশ্য বেলকে ব্যাট হাতে নামতে দেখা যায়। সৌজন্যে মহেন্দ্র সিং ধোনির স্পোর্টিং স্পিরিট। ইউটিউব চ্যানেলে দশক-পুরোনো ঘটনার স্মৃতি রোমন্থন করে বেল বলেন, সেদিনের ভুলটা আমারই। ভেবেছিলাম বলটা বাউন্ডারি পেরিয়ে গিয়েছে। ওই ঘটনার কথা মনে করলে, খুব অবাক লাগে। বোধহয় খুব খিদে পেয়ে গিয়েছিল। তাই তাড়াতাড়ি হাঁটা লাগিয়েছিলাম সাজঘরের দিকে। একটু দেখে নিলে ওই ঘটনা এড়ানো যেত। ধোনি যার জন্য স্পিরিট অফ ক্রিকেট পুরস্কার পায়। দোষটা সম্পূর্ণরূপে আমারই। সতর্ক থাকা উচিত ছিল। শেষপর্যন্ত ১৫৬ রান করেন বেল এবং ম্যাচ ৩১৯ রানে জেতে ইংল্যান্ড।