রাজ্যে ক্ষমতায় এলে বিমল গুরুংকে পাহাড়ে ফেরাবে বিজেপি: সায়ন্তন বসু

1086

শিলিগুড়ি: ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের পর পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি ক্ষমতায় এলে বিমল গুরুং পাহাড়ে ফিরবে।  মঙ্গলবার উত্তরবঙ্গ সংবাদের প্রশ্নোত্তর পর্বে এমনটাই জানালেন বিজেপি রাজ্য সাধারণ সম্পাদক তথা উত্তরবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু। তিনি জানান, শুধু বিমল গুরুং নয়, সমস্ত গোর্খা নেতাদের পাহাড়ে ফেরানো হবে। তাঁর আরও দাবি, রাজ্যে আইনশৃঙ্খলার উন্নতি ঘটিয়ে সফল শিল্প গড়ে তুলে পশ্চিমবঙ্গের ৪৫ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিককে ঘরে ফেরানো হবে। পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য নিশ্চিত চাকরির ব্যবস্থা করা হবে। শুধু তাই নয়, উত্তরবঙ্গের রায়গঞ্জে এইমসের আদলে উন্নত হাসপাতালও গড়ে তোলা হবে।

আসন্ন ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের ৫৪টি আসনের মধ্যেই ৫০টি আসনে বিজেপি জয় লাভ করবে বলে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন সায়ন্তন বসু। তাঁর দাবি, দলীয় সমীক্ষায় উত্তরবঙ্গের ৫৪ আসনের তিন-চারটি আসন বাদে বাকি আসনে বিজেপির জয় নিশ্চিত। তবুও, ওই তিন-চারটি আসনে জয় লাভ করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ইতিমধ্যে গ্রহণ করা হচ্ছে বলেও সায়ন্তন বসু দাবি করেন।

- Advertisement -

তাঁর অভিযোগ, ‘তৃণমূল সরকারের আমলে গত দশ বছরে রাজ্যে কোনও সফল শিল্প গড়ে ওঠেনি। রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা দিনকে দিন অবনতি ঘটছে। কার্যত গণতন্ত্রকে টুটি চেপে হত্যা করা হয়েছে, হচ্ছেও। তার প্রমাণ হিসাবে মমতা সরকারের আমলে রাজ্যের ১২৫ জন বিজেপি কার্যকর্তার হত্যার প্রসঙ্গ উত্থাপন করেন সায়ন্তন বসু।

এখানেই থামেন নি সায়ন্তন বসু। তাঁর অভিযোগ, ২০০৯ সাল থেকে পাহাড়ের গোর্খা, নেপালি জনজাতির মানুষ বরাবর বিজেপির সঙ্গে ছিলেন। আছেনও। কিন্তু, তৃণমূলের মদতে পুলিশ গোর্খা-নেপালি মা-ভাই-বোনদের উপর অকথ্য অত্যাচার চালাচ্ছেন। সে কারণেই, পাহাড়বাসী চুপ রয়েছে। তারা ভয়ে কিছুই বলতে পারছেন না। তবে, ইতিমধ্যে পাহাড়ের জন্য পিপিএস বা পার্মানেন্ট পলিটিক্যাল সলিউশন- র কথা ভেবেছে বলে সায়ন্তনের দাবি। রাজ্যে ক্ষমতায় এসে পাহাড়ের বাসিন্দাদের সুষ্ঠ জীবনযাপনের ব্যবস্থা করবে বিজেপি। উন্নয়ন ঘটিয়ে পাহাড়ের ক্ষোভ প্রশমিত করার চেষ্টা করা হবে।

রাজবংশীদের প্রসঙ্গে  সায়ন্তন বলেন, ‘আমরাই প্রথমবার নারায়ণী সেনার কথা বলেছি। যে ভাবে রাজবংশী সমাজের উপর অত্যাচার-খুন করা হয়েছে, মহিলাদের উপর নির্মম অত্যাচার চালানো হয়েছে, সম্মানহানি করা হয়েছে।’ স্বপ্না বর্মনের প্রসঙ্গে তুলে সায়ন্তনের অভিযোগ, রাজবংশীদের উপর অত্যাচার-সম্মানহানি করা মমতা সরকারের ফ্যাশনে পরিণত হয়েছে। যেটা বিজেপি এটা বন্ধ করবেই। সায়ন্তনের আশা, ২-২১ বিধানসভা নির্বাচনের আগেই নারায়ণী সেনা রেজিমেন্ট গঠন করা হবে। তাঁর দাবি, ‘ আমরাই রাজবংশী সমাজকে সম্পূর্ণ মর্যাদা দিয়েছি। আমরা তাদের নতুন করে সম্মান দিতে চাই, দিয়েছিও। যারা রাজবংশীদের বিষয়ে বিজেপি কিছু করছে না বলে অভিযোগ করছে তারা বাস্তবের থেকে দশ মাইল দূরে আছেন।’