বাপের ব্যাটা হলে শুভেন্দু ডায়মন্ড হারবারে পদ্ম ফুটিয়ে দেখাক: অভিষেক

287

উত্তম দত্ত, ডায়মন্ড হারবার: যে পাল্টিবাজ নেতা নিজের বাড়িতে পদ্মফুল ফোটাতে পারে না সে নাকি সারা বাংলায় পদ্ম ফোটাবে। বাংলাটাকে নরেন্দ্র মোদির হাতে তুলে দেবে। এটা তাঁর বাতুলতা ছাড়া আর কিছুই নয়। রবিবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ড হারবারের কেল্লার মাঠে তৃণমূল কংগ্রেস আয়োজিত এক জনসভায় বক্তব্য রাখতে গিয়ে ঠিক এভাবেই শুভেন্দু অধিকারীকে দুষলেন ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনের সভায় তাঁর বক্তব্যের মূল লক্ষ্য বিন্দু ছিল শুভেন্দু অধিকারী।

মেদিনীপুরের জনসভায় বিজেপিতে যোগ দিয়ে শুভেন্দু অধিকারী যে তাঁর বিরুদ্ধে তোলাবাজির অভিযোগ তুলেছিলেন তাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে অভিষেক তা বিজেপির দিকেই ছুড়ে দেন। তিনি বলেন, তোলাবাজ তিনি নন। জনগণ দেখেছেন খবরের কাগজে মুড়ে কে নারদার টাকা নিয়েছে। শুধু তাই নয়, সারদা, রোজভ্যালি সহ একাধিক কেলেঙ্কারিতে শুভেন্দু অধিকারীই যুক্ত বলে দাবি করেন তিনি। আর তাঁর বিরুদ্ধে যে কয়লা ও গরু পাচারের কোটি কোটি টাকা তোলার অভিযোগ করা হচ্ছে সেটাও সর্বৈব মিথ্যা।

- Advertisement -

তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, কয়লা পাচার আটকানোর দায়িত্ব কাদের? তিনি নিজেই তাঁর উত্তর দিয়ে বলেন যে সে দায়িত্ব কেন্দ্রীয় শিল্প নিরাপত্তা রক্ষী বাহিনী অর্থাৎ সিআইএসএফ এর উপর। আর সেই সিআইএসএফ এর নিয়ন্ত্রণ কার হাতে? নিজেই তাঁর উত্তর দিয়ে অভিষেক বলেন, সেটাও রয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের হাতে। আর সেই মন্ত্রকের মন্ত্রী হলেন অমিত শা। তাই তাঁর মতে নিজেদের গাফিলতি ঢাকতেই তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে।

তিনি বলেন, তাদের দলের পাল্টিবাজ নেতা বিজেপিতে যোগ দিয়েই বলেছিলেন অমিত শা তাঁর দাদা। তাহলে ভাইটি আসলে কে সেটা সকলেই বুঝতে পারছেন। তৃণমূলের যেসব বিধায়ক, সাংসদ, নেতাঁরা দলত্যাগ করে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন তাদের প্রতি কটাক্ষ করে তিনি বলেন, যতক্ষণ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে রয়েছেন ততক্ষণ তৃণমূল কে এল কে গেল তা নিয়ে কোনো মাথাব্যথার কারণ নেই। এদিন অভিষেকের সভায় বজবজের বিধায়ক অশোক দেব ও বিষ্ণুপুরের বিধায়ক দিলীপ মন্ডল উপস্থিত থাকলেও প্রত্যাশা মতোই হাজির ছিলেন না ডায়মন্ড হারবারের তৃণমূল বিধায়ক দীপক হালদার।

এদিন তিনি শুভেন্দু অধিকারীকে কটাক্ষ করে বলেন, যদি সে এক বাপের ব্যাটা হয় তাহলে রাজ্য নয়, ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্রের সাতটি বিধানসভার মধ্যে শুধুমাত্র একটি বিধানসভা তাদের দখলে নিয়ে পদ্ম ফুল ফুটিয়ে দেখাক। তাঁর প্রতি কটাক্ষ করে তিনি বলেন যে, যার বাবা, ভাই সকলেই তৃণমূল করে, তাঁদের সঙ্গে এক বাড়িতে, একসঙ্গে থাকতে তাঁর লজ্জা করে না? এরকম নির্লজ্জদের রাজ্যের মানুষ কখনো মেনে নেয় না।

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা প্রতি কটাক্ষ করতে গিয়ে তিনি বলেন যে, উনারা খেতে ভালোবাসেন। তাই এরাজ্যে বারবার আসছেন, খাচ্ছেন দাচ্ছেন চলে যাচ্ছেন। মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা শুনছেন না। এদিন বিজেপির প্রতি বিষোদগার করতে গিয়ে তিনি বলেন, দুয়ারে সরকার কর্মসূচির ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। আর তার জন্য গায়ে জ্বালা ধরেছে বিজেপির। বাংলার মানুষ এত বোকা নয় যে তাদের সেই গাত্রদাহের কথা তাঁরা বুঝেন না। তাঁরা যথাসময়ে এর যোগ্য জবাব দেবেন।