নির্বাচনী আদর্শবিধিকে উপেক্ষা পুর প্রশাসক সহ প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে, সরব রাজনৈতিক মহল

95

কালিয়াগঞ্জ: কালিয়াগঞ্জের স্থানীয় রামকৃষ্ণ সরণিতে অবস্থিত কালিয়াগঞ্জ পুরসভার অন্তর্গত আরবান প্রাইমারি হেলথ সেন্টার এবং খোদ পুর প্রশাসকের ঘরের সর্বসন্মুখে থাকা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবিকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল কালিয়াগঞ্জের রাজনৈতিক মহলে। গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকেলে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ৮ দফা বিধানসভা ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশ হতেই নির্বাচনী আদর্শবিধি কার্যকর হয়। নিয়ম অনুসারে, কোন সরকারি স্থানে কোনরকম রাজনৈতিক দলের পোস্টার, হোডিং, ব্যানারে আসে বাধ্যবাধকতা। কিন্তু, ভোট ঘোষণার ৫দিন অতিক্রান্ত হলেও পুরসভার প্রাইমারি হেলথ সেন্টারের নেমপ্লেটে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি থাকাতেই বিতর্কের সৃষ্টি হয়।

তবে, কালিয়াগঞ্জ পুরসভার এক্সিকিউটিভ অফিসার ভোট ঘোষণার পর থেকেই নির্বাচনী আদর্শবিধি মেনে সরকারি সমস্ত এলাকা থেকে রাজনৈতিক প্রচারের উদ্দেশ্যে ব্যানার, পোস্টার খুলে নেওয়া হয়েছে বলে জানালেও পুর প্রশাসকের ঘরে কার ছবি রয়েছে এবিষয়ে তিনি কিছু জানেন না বলে দাবি করেন।

- Advertisement -

এই বিষয়ে কালিয়াগঞ্জের কংগ্রেস নেতা সুজিত দত্ত বলেন, ‘ভোট ঘোষণার পাঁচ দিন অতিক্রান্ত হতে চলেছে। সংশ্লিষ্ট পুর আধিকারিকের এই কাজের মধ্য দিয়ে কাজের গাফিলতির ছবি উঠে এসেছে। আমি এখনই স্থানীয় ব্লক প্রশাসনকে জানাব। যদি এতেও কাজ না হয়, বাধ্য হবো লিখিতভাবে অভিযোগ জানাতে।’

এই বিষয়ে কালিয়াগঞ্জ বিজেপির শহর মণ্ডল সভাপতি ভবানী চরন সিংহ বলেন, ‘তৃণমূলের এটা নতুন কিছু নয়। গাজোয়ারি করেই দশ বছর কাটিয়ে দিল।এই বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে অবিলম্বে জানাব।’

এদিকে কালিয়াগঞ্জ পুরসভার এক্সিকিউটিভ অফিসার তথা আদর্শ নির্বাচনবিধির দায়িত্বপ্রাপ্ত নোডাল অফিসার আশুতোষ বিশ্বাস বলেন, ‘ভোট ঘোষণার পরেই ছবিতে কাগজ দিয়ে ঢেকে দেওয়া হয়েছিল। যদি ছবিটি দেখা যায়, তাহলে আবার ঢেকে দেওয়া হবে। এদিকে, পুর প্রশাসকের ঘরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি নিয়ে প্রশ্ন করলে আশুতোষ বিশ্বাস বলেন, কার ঘরে কার ছবি রয়েছে তা আমার পক্ষে জানা সম্ভব নয়। তার জবাব একমাত্র পুর প্রশাসক দেবেন।’

এবিষয়ে কালিয়াগঞ্জ পুরসভার পুর প্রশাসক শচীন সিংহ রায় বলেন, ‘ঘরে থাকা ছবিটি খুলে নিতে বলেছি। আজকেই ছবিটি খুলে নেবে।তবে ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশের পর থেকে আমি আর ওই ঘরে বসি না। ঘর বন্ধই থাকে।’