রূপশ্রী প্রকল্পের টাকা পাইয়ে দিতে অসাধুচক্র

শুভাশিস বসাক, ধূপগুড়ি : রূপশ্রী প্রকল্পের টাকা পাইয়ে দিতে এক শ্রেণির অসাধুচক্র বাসা বেঁধেছে। প্রশাসনিক দপ্তরের বাইরে থেকে কয়েকজনের মদতে ভুয়ো নথি তৈরি করার কাজ চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ। ধূপগুড়ি ব্লক প্রশাসনের দাবি ইতিমধ্যেই ঘটনাটি নজরে এসেছে এবং দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে।

রূপশ্রী প্রকল্পে ২৫ হাজার টাকা পাওয়া যায়। এই আশায় অনেকেই দীর্ঘদিন আগের বিয়েছে নতুন করে তুলে ধরতে ভুয়ো কাগজপত্র তৈরি করে জমা করে বলে অভিযোগ। কিন্তু প্রশাসনিক যাচাই ও স্থানীয়স্তরে খোঁজখবর নিতেই আসল ঘটনা সামনে আসছে। সম্প্রতি কয়েকটি এমন ঘটনাও নজরে এসেছে। জানা গিয়েছে, মেয়েরা বিয়ে ঠিক হওয়ার পরই রূপশ্রী প্রকল্পে টাকার জন্য ব্লক প্রশাসনের কার্যালয়ে আবেদনপত্র জমা করে। সেই আবেদনপত্র সংশ্লিষ্ট গ্রাম পঞ্চায়েত দপ্তরে পাঠিয়ে নোডাল অফিসারের কাছে সমস্ত নথি যাচাই করতে পাঠানো হয় এবং যাচাইয়ে পর ফের ব্লক প্রশাসনের কাছে আনা হয়। দুই স্তরে যাচাইয়ে পর নির্দিষ্ট সময়ে মধ্যেই আবেদনকারীর ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ২৫ হাজার টাকা পাঠানো হয়।

- Advertisement -

তবে এরই মধ্যে অভিযোগ উঠেছে, রূপশ্রী প্রকল্প চালুর আগে বিয়ে হয়ে যাওয়া অনেকেই প্রকল্পের টাকার জন্য আবেদন জমা করেছেন। আরেক শ্রেণির অসাধুচক্র টাকা পাইয়ে দিতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করে দিচ্ছে। ব্লক প্রশাসনের অভ্যন্তরীণ তদন্তে এই ঘটনা উঠে এসেছে। কড়া পদক্ষেপ হিসেবে প্রথম ধাপে আবেদনপত্র বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। কয়েকটি ঘটনায় আবেদনপত্র নিয়ে সন্দেহ হওয়ায় ফের যাচাইয়ে জন্য দপ্তরের আধিকারিককে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। ধূপগুড়ির বিডিও শঙ্খদীপ দাস বলেন, ধাপে ধাপে নথিপত্র যাচাই করা হয়। সেখানেই এই ধরনের ঘটনা নজরে এসেছে। সেগুলি ইতিমধ্যেই বাতিল করে দেওয়া হয়েছে এবং পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

কোনও মেয়ে বিয়ে ঠিক হওয়ার পর রূপশ্রী প্রকল্পের টাকার জন্য আবেদন করছে। স্বাভাবিকভাবে বিয়ে একমাস আগে আবেদন করলেও টাকা পাওয়া যায়। তবে সম্প্রতি জলপাইগুড়ি জেলা প্রশাসন নির্দেশ দিয়েছে বিয়ে কয়েকদিন আগে নথিপত্র জমা করলেও টাকা পাওয়া যাবে যা নিয়ে ব্লক নোডাল এবং প্রশাসনিক আধিকারিকরা যথেষ্ট তৎপরতার সঙ্গে কাজ করেছেন। প্রশাসনিক আধিকারিকরা জানিয়েছেন, ভুয়ো নথিপত্র জমা দেওয়ার বিষয়টি নিয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। কে বা কার মদতে এ ধরনের কাজ করার চেষ্টা করা হচ্ছে সেটাও খতিয়ে দেখার কাজ শুরু হয়েছে।