ডালখোলায় খালের একাংশ দখল করে অবৈধ নির্মাণ

197

বরুণ মজুমদার, ডালখোলা : ডালখোলা পুরসভা এলাকায় মিঠাপুরখালের পাড় ভরাট করে নির্মাণকাজ চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তৈরি হচ্ছে বাড়িঘর, দোকানপাট। এই খাল দিয়ে উত্তর ডালখোলা, হাটবাড়ি, ৭, ৬, ১১ নম্বর ওয়ার্ডের বৃষ্টির জল বা বন্যার জল বেরিয়ে বিহারের মহানন্দায় যায়। এই খালের পাড় দখল করে দিনের পর দিন মাটি ভরাট করে চলছে নির্মাণ। যার ফলে আগামীতে বন্যার জল বয়ে যেতে সমস্যা হবে বলে অভিযোগ। গত বর্ষায় জলের তোড়ে ভেঙে গিয়েছে পাড়ের একটি অংশের মাটি। সেতুর দক্ষিণ-পশ্চিম পাড়ে বাধা পেয়ে জলের ধাক্কায় পূর্ব পাড়ের মাটি ধসে গিয়েছিল। খালের উভয় পাশের চওড়া কমে যাওয়ায় আগামীতে জল কীভাবে বইবে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন হাটবাড়ি, উত্তর ডালখোলার বাসিন্দারা। তার ওপর হাইস্কুলপাড়া, ৭ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নিকাশিনালার জল এই খালে প্রবাহিত হয়। ডালখোলা শহর বিজেপি যুব মোর্চার সভাপতি অর্জুন সরকার বলেন, খালের জমি দখল করে বাড়িঘর নির্মাণ হচ্ছে অথচ পুরসভা চুপ। পুরসভার এই নীরবতাকেই হাতিয়ার করে আগামী পুর নির্বাচনে ঝাঁপাবে বিজেপি।

ডালখোলা পুরসভার যুগ্ম প্রশাসক সুভাষ গোস্বামীকে এই ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে তিনি টেলিফোন লাইন কেটে দেন। ডালখোলা শহর তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তনয় দে বলেন, নির্মাণকর্তার জমিতেই নির্মাণ হচ্ছে। ৫ ফুট ছেড়ে দিয়ে পাঁচিল দেওয়া হয়েছে।  বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশ নেতার মদতেই খালের পাড় ভরাট হয়ে যাচ্ছে। তৃণমূল নেতৃত্ব অবশ্য গেরুয়া শিবিরের এই অভিযোগকে সস্তা রাজনীতি বলে কটাক্ষ করেছেন। ডালখোলা শহর কংগ্রেসের সভাপতি আলতাফ হুসেন বলেন, পুরসভার উদাসীনতার জন্যই খালের পাড় দখল হয়ে নির্মাণ চলছে। আমরা এর বিরুদ্ধে শীঘ্রই শহরজুড়ে আন্দোলনে নামব।

- Advertisement -