অবৈধ নির্মাণ ফের শুরু শিলিগুড়িতে, চুপ কাউন্সিলাররা

334

শমিদীপ দত্ত, শিলিগুড়ি : আপাতত ভোট নিয়ে ব্যস্ত সব কাউন্সিলার। শিলিগুড়ি পুরনিগমেও ভোটের মেজাজ। ফলে প্রতিদিনের কাজের গতি অনেকটা কমেছে। আধিকারিকরাও আর পরিদর্শনে বা অভিযানে না নামায় শহরে জবরদখল থেকে অবৈধ নির্মাণ অবাধে চলছে। একসময় পুরনিগমের নোটিশে বন্ধ হয়ে যাওয়া বিভিন্ন ওয়ার্ডে অবৈধ নির্মাণকাজ নতুন করে শুরু হয়েছে। ৪ নম্বর ওয়ার্ডের দুর্গানগর থেকে ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডের পাতিকলোনি, সর্বত্রই এক অবস্থা। কোথাও কালো ত্রিপল লাগিয়ে নির্মাণকাজ চলছে, কোথাও আবার রাতেও কাজ চলছে। ভোটের জন্যই কাউন্সিলাররা এখন এ বিষয়ে বিশেষ নজর দিতে চাইছেন না। তবে সুযোগের সদ্ব্যবহার-এর বিষয়টি সরাসরি স্বীকার করে নিয়েছেন পুরনিগমের ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলার পিন্টু ঘোষ। এই পরিস্থিতিতে পুরনিগমের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন শহরের সাধারণ মানুষ। পুরনিগমের ৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলার তথা পুরনিগমের ডেপুটি মেয়র রামভজন মাহাতো বলেন, পুরনিগমে নির্দিষ্ট অভিযোগ এলে আমরা ব্যবস্থা নেব।

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে মাস দুয়েকের মধ্যেই পুরভোট। রাজনৈতিক দলগুলি এখন নিজেদের মতো করে ঘুঁটি সাজাতে শুরু করেছে। ভোটব্যাংকে যেন কোনওভাবে ধাক্কা না লাগে তাই কাউন্সিলাররা এখন কোনও বিতর্কিত ব্যাপারে জড়াচ্ছেন না। সেই সুযোগে পুরনিগমের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের বর্ধমান রোড ও খালপাড়া মোড় সংলগ্ন অবৈধ নির্মাণগুলির কাজ ফের শুরু হয়েছে। পূর্ত দপ্তরের জায়গা দখল করে গজিয়ে ওঠা দোকানগুলি গতবছর ফেব্রুয়ারি মাসে পিলার তুলে পাকা করার কাজ শুরু হয়। সেই সময় পুর আধিকারিকরা গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেন। এরপর নির্মাণকাজ বন্ধ থাকলেও ভোটের মুখে আবার কাজ শুরু হয়েছে। খালপাড়া মোড় সংলগ্ন এলাকায় সামনে কালো ত্রিপল টাঙিয়ে নির্মাণকাজ চলছে। বিবেকানন্দ মোড় সংলগ্ন আরেকটি অবৈধ নির্মাণে দোতলা তুলে দোকানঘর তৈরি হয়ে গিয়েছে। কাউন্সিলার পিন্টু ঘোষ বলেন, এখন ভোটের সময়, তাই আমরা এখন ব্যস্ত আছি। সুযোগ বুঝে অনেকেই নির্মাণকাজ করছে। পুরনিগমে একবার জানাব। একইরকমভাবে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের দুর্গানগরে গতবছরের জানুয়ারি মাসে কয়েকটি নির্মাণকাজ শুরু হয়েছিল। সেক্ষেত্রেও পুর আধিকারিকরা কাজ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এখানে রাস্তার কিছুটা দখল করে একটি বাড়ির সামনের অংশ ভাঙার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ওই বাড়ির সামনের অংশ ভাঙা না হলেও নতুন নির্মাণকাজ বন্ধ ছিল। এখন সেই বন্ধ থাকা কাজ শুরু হয়েছে। এ বিষয়ে ওই বাড়ির মালিক কোনও মন্তব্য করতে  চাননি। এলাকার মানুষ বিষয়টি দেখলেও ওয়ার্ড কাউন্সিলার পরিমল মিত্র  বিষয়টি জানা নেই বলে এড়িয়ে গিয়েছেন। তাঁর কথায়, বিষয়টি দেখে নিচ্ছি। ৪৭ নম্বর ওয়ার্ডে পাতিকলোনি মাঠ সংলগ্ন একটি অবৈধ বহুতল নির্মাণের কাজও একইভাবে গত সপ্তাহ থেকে শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে এক্ষেত্রে অবশ্য বিষয়টি জানেন বলে স্বীকার করেছেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কাউন্সিলার রীতা ওরাওঁ। তিনি বলেন, আগে পুরনিগম থেকে ওই নির্মাণকাজ বন্ধ করেছিল। তবে নতুন করে ফের কাজ শুরু হওয়ার বিষয়টি শুনেছি। আমি পুরনিগমে চিঠি দেব।  ৪৭টি ওয়ার্ডের বহু জায়গায় এভাবে পুরনিগমের হস্তক্ষেপে বন্ধ হওয়া কাজ নতুন করে, কোথাও একেবারেই নতুন নির্মাণ আবার শুরু হয়েছে। শহরের বাসিন্দা মনোতোষ রায় বলেন, ভোট নিয়ে এখন থেকেই ওয়ার্ডের প্রতিনিধিরা এত মনোযোগী হয়ে উঠেছেন য়ে, পুরনিগমের নজরদারি লাটে উঠে গিয়েছে। অবৈধ নির্মাণকারীরা অবাধে নির্মাণকাজ চালাচ্ছে। পুরনিগমের বর্তমান বোর্ড যে এখনও রয়েছে, সেটা হয়তো জনপ্রতিনিধিদের অনেকেই ভুলে গিয়েছেন।

- Advertisement -