ইসিএলের লিজ হোল্ড এলাকা থেকে মাটি চুরির অভিযোগ মাফিয়াদের বিরুদ্ধে

93
illegal minng at ecl asansol

আসানসোল, ২৭ ফেব্রুয়ারিঃ আসানসোলের বারাবনি ব্লকের ইসিএলের পুরোনো বা ওল্ড ভানোরা (আর) কোলিয়ারির জমি থেকে অবৈধভাবে মাটি চুরির অভিযোগ উঠল মাফিয়াদের বিরুদ্ধে। ইটভাঁটার জন্য মাটি মাফিয়ারা অবৈধভাবে সেখান থেকে মাটি তুলে নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বেশি পরিমানে মাটি খনন করায়, আশেপাশে থাকা শিশুদের খেলার মাঠও চুরি হয়ে যাচ্ছে। ফলে, শিশুরা কোথায় খেলবে, তানিয়েও, সমস্যা দেখা দিয়েছে বলে খবর। এছাড়াও এভাবে চলতে থাকায়, যেকোনও সময়ে দুর্ঘটনার আশঙ্কা বাড়ছে বলে মনে করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এই প্রসঙ্গে, কোলিয়ারি কর্তৃপক্ষের তরফে জেনারেল ম্যানেজার মুকেশ কুমার যোশী বলেন, বৃহস্পতিবার বারাবনি থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করতে গেলে, থানা তা গ্রহণ করেনি। তাই শুক্রবার ডাকযোগে অভিযোগপত্র থানা ও পুলিশের উচ্চ পদস্থ আধিকারিকদের কাছে পাঠানো হয়েছে। এদিন বিকেল পর্যন্ত কোনও অভিযোগ থানায় আসেনি বলে বারাবনির পুলিশের জানিয়েছে।

 

- Advertisement -

স্থানীয় একটি আইসিডিএস কেন্দ্রের অদূরে মাটি খননের ফলে, এলাকা দিয়ে শিশুরা আইসিডিএস কেন্দ্রে যাতায়াত করতে গিয়ে যেকোনও মুহূর্তে দুর্ঘটনার কবলে পড়তে পারে বলে বাসিন্দাদের আশঙ্কা। ইসিএলের করা অভিযোগপত্র থেকে জানা গিয়েছে, বারাবনি ব্লকের বারাবনি গ্রাম পঞ্চায়েত পুরোনো বা ওল্ড ভানোরা (আর) কোলিয়ারির প্রচুর পরিমানে মাটি ইসিএলের লিজ হোল্ড এলাকা থেকে চুরি করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। অভিযোগে আরও বলা হয়েছে, এর ফলে গোটা এলাকাটি বিপজ্জনক হয়ে পড়েছে। মাটি ট্রাক্টরে করে এই এলাকা থেকে ইটভাটায় চলে যাচ্ছে বলেও খবর মিলেছে। এলাকার পাশেই রয়েছে একটি আদিবাসী পাড়া। সেই পাড়ার শিশুরা পড়াশোনা করতে যায় আইসিডিএস সেন্টারে। গ্রামের বাসিন্দাদের বক্তব্য, শিশুরা এলাকার মাঠে দীর্ঘদিন খেলা করে আসছে। কিন্তু, মাটি মাফিয়ারা মাটি কেটে নিয়ে যাওয়ায় শিশুরা ওই মাঠে এখন আর খেলতে পারছে না।

 

এই প্রসঙ্গে ভানোরার গিরমিন্ট কোলিয়ারির এজেন্ট অনিল কুমার সিনহা বলেন, মাটি চুরির অভিযোগ পেয়ে ইসিএলের পর্যবেক্ষক দল শ্রীপুর এরিয়া থেকে এসেছিল। বৃহস্পতিবার তাঁরা সার্ভে করে একটি রিপোর্ট দেয়। যে জমি থেকে মাটি চুরি করা হচ্ছে তা ইসিএলের। সেই জমির দাগ ও মৌজা নম্বর দিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এই বিষয়ে বারাবনি থানায় নিরাপত্তা আধিকারিকের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। এই কোলিয়ারি শ্রীপুর এরিয়ার অন্তর্ভুক্ত। শ্রীপুর এরিয়ার জেনারেল ম্যানেজার মুকেশ কুমার যোশী এই প্রসঙ্গে বলেন, মাটি চুরির খবর পেয়ে এলাকায় ইসিএল ও নিরাপত্তা আধিকারিকদের পাঠিয়েছিলাম। তাঁরা দেখেছেন রাতের অন্ধকারে মাটি চুরি হচ্ছে। তাই এলাকাটি বিপজ্জনক হয়ে উঠেছে। বারাবনি পঞ্চায়েতের উপপ্রধান জীতেন্দ্র কুমার বলেন, যেকোনও সময়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ইসিএলের উচিত যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া। এই জায়গার মালিক ইসিএল। তবে, সাধারন মানুষের কথা মাথায় রেখে পঞ্চায়েতের তরফে বহুবার মাটি দিয়ে ওই গর্ত ভরাট করা হয়েছে।