বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপকের সঙ্গে ছাত্রীর অবৈধ সম্পর্ক, তদন্তে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি

1203

বর্ধমান: ছাত্রীদের সঙ্গে আপত্তিকর সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উঠেছিল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র প্রফেসর ড. অংশুমান করের বিরুদ্ধে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেই অভিযোগের তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল ইন্টার্নাল কমপ্লেন কমিটিকে। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কমিটির বৈঠকে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিল ইন্টার্নাল কমপ্লেন কমিটি। ওই রিপোর্টের ভিত্তিতে গোটা ঘটনার তদন্ত ফের হাইকোর্টের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে দিয়ে করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের বৈঠকে এদিন এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, যতদিন না এই তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত কোনও ধরনের একাডেমিক কাজে অংশ নিতে পারবেন না অভিযুক্ত অধ্যাপক অংশুমান কর।

- Advertisement -

উল্লেখ্য বিশিষ্ট কবি তথা বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র প্রফেসর অধ্যাপক ডক্টর অংশুমান করের বিরুদ্ধে কিছুদিন আগে ছাত্রীদের সঙ্গে আপত্তিকর সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ আনেন ওই বিভাগেরই এক ছাত্রী। এই সংক্রান্ত বেশকিছু অডিও ক্লিপ ও হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট ভাইরাল হয়ে যায়। এর পরেই বিষয়টি নিয়ে তদন্তের দাবি জানায়, বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ, ভারতের ছাত্র ফেডারেশন ও অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ। তদন্ত শুরু করে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টার্নাল কমপ্লেন কমিটি। এই বিষয়ে মঙ্গলবার রাতে ডক্টর অংশুমান করকে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন ‘আমার সম্পর্কে কী অভিযোগ কোথায় কে করেছে আমি সেটাই জানি না। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে আমাকে কিছুই জানানো হয়নি। ফলে এ বিষয়ে আমার কিছুই বলার নেই।’