মহাবীরস্থান উড়ালপুলের নীচে ফের দোকানপাট

277

শিলিগুড়ি : প্রশাসনিক নজরদারি কমতেই ফের বেআইনিভাবে দোকান গজিয়ে উঠেছে মহাবীরস্থান উড়ালপুলের নীচে আম্বেদকার রোডে। কোথাও ত্রিপল লাগিয়ে আবার কোথাও বাঁশ দিয়ে পরিকাঠামো তৈরি করে দোকান করা হয়েছে। এভাবেই দিনের পর দিন উড়ালপুলের নীচের রাস্তা দখল করে ব্যবসা করছেন দোকানদাররা। কয়েকমাস আগেই প্রশাসনিক অভিযান চালিয়ে তুলে দেওয়া হয় রাস্তা দখল করে থাকা অবৈধ দোকান। কিন্তু কয়েক মাস কাটতে না কাটতেই ফের একটু একটু করে শুরু হয়েছে দখল। স্থানীয় ব্যবসাযীরা জানান, পুজোর সময় থেকেই অবৈধভাবে রাস্তাজুড়ে দোকান বসা শুরু হয়েছে, যা ধীরে ধীরে বড়ো আকার নিয়েছে।  প্রশাসনিক নজরদারির অভাবেই দিনদিন রাস্তা এভাবে  দখল হচ্ছে বলে ব্যবসাযীদের অভিযোগ।

এমনিতেই পুরনিগমের ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের আম্বেদকার রোডটি দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থায়। যার ফলে মাঝেমাঝেই ছোটোখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে। রাস্তাটি মেরামত করার জন্য পুরনিগমের ৩ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান নিখিল সাহানি ওই রাস্তা পরিদর্শনও করেন। কিন্তু তারপরও কোনো কাজ হয়নি বরং নজরদারি না থাকার জন্য রাস্তা দখল হচ্ছে বলে অভিযোগ ব্যবসাযী সমিতির। এছাড়াও রাস্তা দখল হওয়ার জন্য অসুবিধার সম্মুখীন হতে হচ্ছে যানবাহন থেকে শুরু করে পথচলতি মানুষদের।

- Advertisement -

মহাবীরস্থান ক্রসিং থেকে কালীবাড়ি রোড যাওয়ার রাস্তা দখল করে বসেছে জামাকাপড়, ফাস্ট ফুড ও ফলের দোকান। দোকানগুলির পিছনে রয়েছে আরও কতগুলো দোকান। এ ব্যাপারে মহাবীরস্থান ব্যবসায়ী সমিতির পক্ষ থেকে জানানো হয়, ক্রসিংয়ের পাশে কিছুটা জায়গা আমাদের আওতায় নেই। সেখানে নিজের খুশিমতো বসে যাচ্ছেন দোকানদাররা। প্রয়োজনে লাগিয়ে নেওয়া হচ্ছে ত্রিপল। বাঁশ আটকে তৈরি করা হচ্ছে  দোকান। পাশাপাশি আরও জানান, বেশ কয়েকবার অবৈধ দোকানদারদের রাস্তা ছেড়ে বসার কথা জানানো হলেও তাঁরা কর্ণপাত করেননি। যদিও রাস্তা দখল করে বসা দোকানদারদের এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলেও তাঁরা কোনো উত্তর দেননি। মহাবীরস্থান ক্ষুদ্র ব্যবসাযী কল্যাণ সমিতির বিপ্লব ঘোষ বলেন, এই রাস্তায় কড়া প্রশাসনিক নজরদারির দরকার। আগে বিধান মার্কেটেও এই সমস্যা ছিল এখন অনেকটা কমেছে। রাস্তার পাশে একটা নির্দিষ্ট লাইন করে দেওয়া দরকার। যার বাইরে দোকানদাররা বসতে পারবেন না। আমাদের কমিটির সদস্যরা রাস্তা দখল করে ব্যবসা করেন না। অবৈধ দোকানদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আস্তে আস্তে পুরো রাস্তাটি দখল হয়ে য়াবে। অন্যদিকে, শিলিগুড়ি পুরনিগমের ডেপুটি মেয়র রামভজন মাহাতো বলেন, রাস্তা দখল করে এভাবে ব্যবসা করা যাবে না। সাধারণ মানুষের যাতায়াতের অসুবিধা করে এ ধরনের কাজ চলবে না। বিষয়টি দেখে ব্যবস্থা নেব।