থানায় অফিসারকে তেল মালিশ মহিলা পুলিশের

7922

শিলিগুড়ি :  থানার ব্যারাকে পুলিশ অফিসার এবং কর্মীদের শরীরে তেল মালিশ করছেন মহিলা পুলিশকর্মী। তাও আবার পুরুষদের ব্যারাক। সেখানে মহিলাদের প্রবেশ করারই কথা নয়। এমনই ঘটনার ছবি ধরা পড়েছে বালুরঘাট জিআরপি থানায়। অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরেই থানা ব্যারাকে এই ঘটনা ঘটছে। থানার ছোট-বড় সব পুরুষ পুলিশকেই ম্যাসাজ করে দেন ওই মহিলা পুলিশকর্মী। উত্তরবঙ্গ সংবাদের হাতে যে এক্সক্লুসিভ ভিডিও ফুটেজ এসেছে সেখানে দেখা যাচ্ছে, ব্যারাকের মেসের রান্নাঘরে খালি গায়ে বসে রয়েছেন এক পুলিশ অফিসার। তাঁর পিছনে চেয়ারে বসে খাকি পোশাক পরে মালিশ করে দিচ্ছেন মহিলা পুলিশকর্মী। অথচ এই বিষয়ে নাকি কিছুই জানেন না বালুরঘাট জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত অফিসার (ওসি) মনোজ ঝা। তিনি বলেন, ব্যারাকে এমন হচ্ছে? আমি তো এসবের কিছুই জানি না। প্লিজ এসব কাউকে বলবেন না। ভিডিওগুলো আমাকে পাঠান। আমি আইনি ব্যবস্থা নিচ্ছি। বিষয়টি নিয়ে শিলিগুড়ির রেল পুলিশ সুপার অঞ্জলি সিং-এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইন অনুয়ায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাত-আট মাস আগে থানায় নিজের বিছানায় এক মহিলা পুলিশকর্মীকে দিয়ে ম্যাসাজ করাতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক। সেই সময় খবরের শিরোনামে এসেছিল বালুরঘাট জিআরপি থানা। সেই সময় থানারই কিছু কর্মী সেই ঘটনা ভিডিও রেকর্ডিং করে ভাইরাল করে দিয়েছিলেন। এর পরেই বদলি হয়েছিলেন সেই অফিসার। তার পরেই এই থানার দায়িত্ব নেন সাব-ইনস্পেকটর মনোজ ঝা। কিন্তু তার পরেও থানার পরিবেশ এতটুকু পরিবর্তন হয়নি বরং আরও খারাপ হয়েছে বলে অভিযোগ। এখন থানার পাশাপাশি পুরুষ ব্যারাকেও অশালীন কাজকর্ম শুরু হয়েছে। বালুরঘাট জিআরপি থানা থেকে প্রায় ৯০০ মিটার দূরে ব্যারাক রয়েছে। সেখানে পুলিশকর্মীরা থাকেন এবং প্রত্যেকেই পুরুষ। কাজেই সেখানে কোনও মহিলার প্রবেশ করার কথা নয়। কিন্তু থানার একটি সূত্রেই পাওয়া ভিডিও ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ব্যারাকের মেসের রান্নাঘরে এক মহিলা রান্না করছেন। সেখানে একজন পুলিশ আধিকারিক খালি গায়ে বসে রয়েছেন। তাঁর পিছনে একটি চেয়ারে বসে এক মহিলা পুলিশকর্মী তাঁকে তেল মালিশ করছেন। সেখানে আরও একজন মহিলা পুলিশকর্মীকেও দেখা যাচ্ছে।

- Advertisement -

জিআরপি সূত্রের খবর, এই ঘটনা একটা উদাহরণ মাত্র। দীর্ঘদিন ধরেই এই থানায় অনেকেই এভাবে তেল মালিশের সুবিধা নিচ্ছেন। শুধু তেল মালিশই নয়, আরও অনেক মহিলাঘটিত কাজকর্ম এই থানায় হচ্ছে। যাঁরা এই সমস্ত কাজকর্মের বিরোধিতা করেন তাঁদের বেশিরভাগ সময়ই বাইরে ডিউটি দিয়ে রাখা হচ্ছে। অভিযোগ, মহিলাঘটিত কাজকর্মই শুধু নয়, ব্যারাকের মেসে খাবার নিয়ে ওই মহিলা পুলিশকর্মীরাই সমস্তটা ঠিক করছেন। সেখানে ব্যারাকের আবাসিক পুলিশকর্মীরা কে কী খাবেন তা গুরুত্ব পাচ্ছে না। কেউ প্রতিবাদ করলেই শাস্তি হিসাবে ওভারটাইম ডিউটি দেওয়া হচ্ছে।