অবৈধ চা বাগান গড়ে ওঠার অভিযোগ জামালদহে

589
জামালদহের কে এফ এগ্রো নামে চা বাগানের এই অংশের মালিকানা নিয়েই বিতর্ক দেখা দিয়েছে।

জামালদহ: সরকারি জমি দখল করে অবৈধভাবে চা বাগান গড়ে উঠেছে। এমনই অভিযোগ ওঠে কোচবিহার জেলার মেখলিগঞ্জ ব্লকের জামালদহে।

জামালদহ গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৯৪ নম্বর উত্তর দ্বারিকামারি এলাকায় অবস্থিত বন বিভাগের জমি দখল করে কেএফ এগ্রো নামে একটি বড় চা বাগান গড়ে উঠেছে বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ অভিযোগ তুলেছেন। এ ব্যাপারে তাঁরা শুক্রবার জামালদহ বনাঞ্চলের বিট অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগও জমা দিয়েছেন। তবে ওই চা বাগান কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আজ থেকে ২০-২৫ বছর আগে নিজস্ব জমিতেই ওই চা বাগান গড়ে উঠেছে। অতএব, বাসিন্দাদের অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই।

- Advertisement -

চা বাগান সংলগ্ন এলাকার বাসিন্দা দুলাল বর্মন, উত্তম বর্মন, ভাস্কর রায় প্রমুখের অভিযোগ, বহু বছর ধরে সরকারি জমি নিজেদের দখলে রেখেছে একটি বাগান কর্তৃপক্ষ। ওই জমিটি পুনরুদ্ধারের জন্য বন বিভাগের কাছে লিখিতভাবে দাবি জানানো হয়েছে।

স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য অগেন বর্মন বলেন, ‘চা বাগানের বিরুদ্ধে বন বিভাগের জমি দখলের একটা অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি এখন বন বিভাগ খতিয়ে দেখুক।’

এ ব্যাপারে ওই চা বাগানের মালিকপক্ষের তরফে অবশ্য জানানো হয়েছে, কারও জমি দখল করে বাগান গড়ে ওঠেনি। বরং, বাগানের জমি কিছু দুষ্কৃতী বিভিন্নভাবে দখল নেওয়ার চেষ্টা করছে। সেগুলির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতেই উলটো পালটা অভিযোগ করা হচ্ছে।

জামালদহ বনাঞ্চলের বিট অফিসার পরিমল বর্মন এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।‘

প্রায় ৩০০ বিঘা জমি জুড়ে ওই বাগান রয়েছে। বাগানের সঙ্গে প্রায় ৫০০ জন শ্রমিক ও কর্মী জড়িত। সুটুঙ্গা নদী তীরবর্তী ওই বাগানের বেশ কিছু অংশ বন বিভাগের জমি দখল করে গড়ে উঠেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।