মানিকচকের রিক এখন টলিউডের সফল তারকা

625

প্রকাশ মিশ্র, মানিকচক :  বিদ্যুৎ দপ্তরে কলম পিষলেও রূপোলি জগতেই মন পড়ে থাকত রিকের। একেক সময় তাঁর মনে হত ছুটে গিয়ে সেখানেই পাকাপাকি কিছু ব্যবস্থা করার। আর ঠিক যেমন ভাবা তেমন কাজ। সবকিছু ছেড়েছুড়ে অভিনয়ে টানে তিনি একদিন ছুট লাগালেন কলকাতায়। নতুন উদ্যমে এই জগতে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করতে দোসর রইল তাঁর অদম্য জেদ আর মনের জোর। সময়ে সঙ্গে সঙ্গে একটু একটু করে টলিউডে জায়গা পাকা করতে থাকলেন তিনি। সেই শুরু। আর ফিরে তাকাতে হয়নি রিককে।

রূপকথার মতো এই গল্পের নায়ক ইমরান নাসের ওরফে রিক। মানিকচকের প্রত্যন্ত গ্রাম মথুরাপুরের কামালপুরে বাড়ি তাঁর। বাবা আবদেশ নাসেরের একটি ছোটো ব্যবসা রয়েছে ও মা কবিতা নাসের পেশায় স্বাস্থ্যকর্মী। বাবা-মা জানান, ছোটো থেকেই অভিনয়ে প্রতি তীব্র আকর্ষণ ছিল রিকের। রিক জানান, বর্তমানে বাংলার একটি জনপ্রিয় মেগা সিরিয়াল কনক-কাঁকনে অভিনয় করছেন তিনি। এছাড়াও সুজাতা ভট্টাচার‌্যের অনুভতি নামে একটি বাংলা ছবির কাজও চলছে। সেখানে তাঁর চরিত্রটি বেশ বড়ো বলে জানালেও সেই সম্বন্ধে এখনই বিশেষ খোলসা করতে চাইলেন না রিক। পাশাপাশি মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন আমার শহর নামে একটি বাংলা ছবিতেও। সেখানে তাঁর সঙ্গে অভিনয় করেছেন প্রিয়াঙ্কা সরকার, সায়নী ঘোষ, শিলাজিতের মতো তাবড় অভিনেতা-অভিনেত্রীরা।

- Advertisement -

তবে শুরু থেকে মোটেই এত সহজ ছিল না তাঁর যাত্রাপথ। এই জায়গায় পৌঁছাতে তাঁকে বারবার নানা ধরনের সংগ্রামের মুখোমুখি হতে হয়েছে। ২০১৪ সালে প্রথম বড়ো সুযোগ আসে পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্তের হাত ধরে। বলিউডের নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকির সঙ্গে বুদ্ধদেববাবুর ছবিতে অভিনয় করেন রিক। এই দুই মহারথীর সান্নিধ্য তাঁকে ভবিষ্যতের লড়াইয়ে সাফল্যের রসদ দেয়। আজও তাঁদের কাছে তিনি সমানভাবে ঋণী। সাফল্য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলে বারবার একই কথা বলেন রিক। রাস্তা কোনোদিনই সহজ ছিল না। আজও বন্ধুর পথ বেয়ে ধীরে ধীরে উত্তরণ হচ্ছে। ঋক বলেন, একটা সময় ছিল যখন কাজের খোঁজে ঘুরতে হত প্রযোজক-পরিচালকদের দোরে দোরে। হতাশা গ্রাস করত সেসময়। কিন্তু সবসময় তো খারাপ হয় না! তেমনই সেখানেও ভালো কিছু লোক ছিলেন। তাঁদের হাত ধরেই রূপোলি জগতে সাহস করে পা ফেলা।

মানিকচক শিক্ষা নিকেতন থেকে মাধ্যমিক পাস করার পর মথুরাপুর বিএসএস হাইস্কুল থেকে উচ্চমাধ্যমিকে উত্তীর্ণ হন রিক। তারপর সেন্ট পলস কলেজ থেকে মাইক্রোবায়োলজিতে অনার্স। সেখানে পড়াশোনার সময়ই অভি চক্রবর্তীর নাট্যমুখ সংস্থায় অভিনয়ে হাতেখড়ি। কিন্তু তবুও বিশেষ কাজ জোটেনি তাঁর। হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে আসেন তিনি। সেসময় তিনি বিদ্যুৎ দপ্তরে কাজে ঢোকেন। কিন্তু মন পড়ে ছিল সেই রূপোলি জগতেই। এরপরই নেশার টানে সবকিছু ছেড়েছুড়ে সোজা কলকাতায় পাড়ি। সেসময় তিনি পাশে পান পরিচালক স্নেহাশিস চক্রবর্তীকে। তাঁর হাত ধরেই শুরু করেন প্রথম কাজ। প্রতিষ্ঠিত বাংলা চ্যানেলের জনপ্রিয় মেগা সিরিয়ালে অভিনয় করেন তিনি। সেখান থেকেই মিলতে শুরু করে সাফল্য, মানুষের আশীর্বাদ ও জনপ্রিয়তা। রিক বলেন, এখনও অবধি বিরাট কিছু প্রাপ্তি হয়তো হয়নি। কিন্তু আমি হাল ছাড়ব না। জীবনের শেষ অবধি তাঁর ভালোবাসা ও নেশাকে আঁকড়ে ধরেই বেঁচে থাকতে চান ইমরান নাসের ওরফে রিক।